স্টাফ রিপোর্টার, দিঘা: আনলক-২ ধীরে-ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফেরার চেষ্টা করছে সৈকত শহর দিঘা। আর এরই মধ্যে দিঘায় বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে এসে ঘটে গেল মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। শনিবার দিঘার তাজপুর সমুদ্রে স্নান করতে গিয়ে তলিয়ে যায় কলকাতার দুই পর্যটক যুবক। শনিবার এক বন্ধুর মৃতদেহ উদ্ধার করা গেলেও আরও এক নিখোঁজ পর্যটকের মৃতদেহ উদ্ধার হয় রবিবার।

পুলিশ সূত্রে খবর, পূর্ব মেদিনীপুর জেলার সৈকত শহর তাজপুরে শনিবার স্নান করতে গিয়ে তলিয়ে গিয়েছিল এক পর্যটক। তাঁকে উদ্ধার করতে গিয়ে আরও একজন নিখোঁজ হয়ে যায়। উদ্ধার হওয়া দুই মৃত যুবকের বাড়ি হাওড়ায়। মৃতদের নাম শাহেদ সালিম(২৫)। বাড়ী ৫ নম্বর পি এম বস্তী,শিবপুর।

দ্বিতীয় বন্ধুর নাম মহম্মদ জুনেত(৩০)। বাড়ি হাওড়া থানার টিকিয়াপাড়ায়। শনিবারই ৫বন্ধু মিলে একটি গাড়ীতে করে দিঘা বেড়াতে এসেছিলেন। তাঁদের মধ্যে তিনজন একটি প্রাইভেট গাড়িতে করে তাজপুর চলে আসেন। এরপর তিনজনই একসঙ্গে সমুদ্রে স্নানে নামে। বন্ধুদের মধ্যেএকজন কিছুক্ষণের মধ্যে উঠে আসে। বাকি দুজন ক্রমশ গভীর সমুদ্রের দিকে তলিয়ে যায়।

এরপর দুর্ঘটনার খবরে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন এবং ডুবুরীরা। শনিবারই সাহেদ শালিম কে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তবে নিখোঁজ ছিল মহম্মদ জুনেত। শনিবার দিনভোর সমুদ্রে স্পিডবোট নামিয়ে চলে তল্লাশি। তবুও তাঁর কোনও খোঁজ মেলেনি।

রবিবার সকালে মহম্মদ জুনেত নামে ওই যুবকের মৃতদেহ মেলে তাজপুর ২নং ব্রিজের কাছে। হাওড়ার শিবপুরের ৫ নম্বর পিএম বস্তির বাসিন্দা ছিলেন সাহেদ শালিম। জুনেতের বাড়ি টিকিয়াপাড়াতে।

তাঁদের সঙ্গে স্নান করতে নামা আরও একজন বন্ধু সুস্থ রয়েছেন। তবে আনলক-২ তে দিঘার পর্যটন কেন্দ্র পর্যটকদের জন্য খুলে দেওয়ার পর এইধরনের মর্মান্তিক মৃত্যুতে চিন্তায় পড়েছে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন।।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ