ফণীর প্রভাব কাটতেই গরম বাড়ছে হু হু করে। কলকাতায় পারদ প্রায় ৪০-এর কাছাকাছি। অন্ধ্রপ্রদেশে হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছে ৪৩৩ জন। এভাবে গরম বাড়তে থাকলে কলকাতাতেও মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে। হিট স্ট্রোকের সম্ভাবনাও বেড়ে যায়।

কেউ হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হলে কীভাবে বুঝবেন?

  1. তাপমাত্রা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শরীরে নানা রকম প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। প্রাথমিকভাবে হিট স্ট্রোকের আগে অপেক্ষাকৃত কম মারাত্মক হিট ক্র্যাম্প অথবা হিট এক্সহসশন হতে পারে। হিট ক্র্যাম্পে শরীরের মাংসপেশিতে ব্যথা হয়, শরীর দুর্বল লাগে এবং প্রচণ্ড জল পিপাসা পায়।
  2. এরপর দ্রুত শ্বাসপ্রশ্বাস নেওয়া শুরু হয়। শুরু হয় অসহ্য মাথা যন্ত্রণা।
  3. কিছুক্ষণের মধ্যেই মাথা ঝিমঝিম করতে শুরু করে। বমি বমি ভাব শুরু হয়। অনেকে অসংলগ্ন আচরণ করতে শুরু করে।
  4. শরীর অত্যন্ত ঘামতে শুরু করে।
  5. শরীরের তাপমাত্রা দ্রুত ১০৫ ডিগ্রি ফারেনহাইট ছাড়িয়ে যায়।
  6. বেশ কিছুক্ষণ দরদর করে ঘাম দেওয়ার পর ঘাম বন্ধ হয়ে যায়। শরীর শুষ্ক হয়ে যেতে শুরু করে।
  7. ত্বক শুষ্ক ও লালচে হয়ে যায় ক্রমশ।
  8. পালস দেখলে বোঝা যাবে স্পন্দন ক্ষীণ ও দ্রুত হতে থাকে।
  9. রক্তচাপ চেক করলে দেখা যাবে এই সময়ে রক্তচাপ কমে যায়।
  10. খিঁচুনি আসতে পারে, মাথা ঝিমঝিম করতে পারে, হ্যালুসিনেশনও হতে পারে।
  11. জল খেলেও প্রস্রাবের পরিমাণ লক্ষণীয়ভাবে কমে যায়।
  12. অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে কেউ। সেক্ষেত্রে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

আসলে আমাদের দেহের স্বাভাবিক তাপমাত্রা ৯৮ ডিগ্রি ফারেনহাইট। যদি এটি ১০৪ ফারেনহাইট পেরিয়ে যায় তখনই হিট স্ট্রোক হতে পারে। হিট স্ট্রোকের সময় দ্রুত রোগীকে চিকিৎসকের কাছে না নিয়ে গেলে তার মরত্যু পর্যন্ত হতে পারে।