তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: স্বাস্তিক ভট্টাচার্য। বাঁকুড়ার কোতুলপুরের ইলেভেন বুলেটস ক্লাব, কাঁচা মিঠে যোগা ও জিমন্যাস্টিকস সেন্টারের এই ক্ষুদে প্রতিভাবান এবার নয়া দিল্লিতে পাড়ি দিচ্ছে৷ সেখানে যোগা অলিম্পিয়াড-২০১৯ এ অনূর্ধ্ব-১৪ বিভাগে রাজ্যের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করতে চলেছে সে। যা জেলার ইতিহাসে এই প্রথম।

এনসিইআরটি আয়োজিত এবছরের যোগা অলিম্পিয়াড আগামী ১৮ জুন নিউ দিল্লিতে শুরু হচ্ছে। চলবে ২০ জুন পর্যন্ত। স্বাস্তিক ভট্টাচার্য এবার বাঁকুড়া জেলা স্কুল গেমস অ্যান্ড স্পোর্টস কাউন্সিলের মাধ্যমে এই জাতীয় স্তরের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছে।

১৯৬০ সালে প্রতিষ্ঠিত কোতুলপুর ইলেভেন বুলেটস ক্লাব প্রায় তিরিশ বছর ধরে এলাকার ছাত্র ছাত্রীদের নাম মাত্র খরচে যোগা ও জিমনাস্টিক প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছে। ইতিমধ্যে এই ক্লাবের সদস্যরা যোগা ও জিমন্যাস্টি প্রতিযোগিতার রাজ্য স্তরে বেশ কয়েকবার সাফল্য পেয়েছে। শুক্রবার এখানকার পাঁচ জন ছাত্র ছাত্রী মেদিনীপুরে রাজ্য স্তরের এক প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে সেখানে পৌঁছে গেছেন বলে ক্লাবের তরফে জানানো হয়েছে।

 

ইলেভেন বুলেটস ক্লাবের নিজস্ব মাঠে প্রতিদিন সকাল ছ’টা থেকে সাড়ে সাতটা ও বিকেল চারটে থেকে সাতটা পর্যন্ত নিয়ম করে প্রায় ১০০ ক্ষুদে সদস্যকে যোগা ও জিমনাস্টিক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এখান থেকেই প্রশিক্ষণ নিয়ে একেবারে নিম্নবিত্ত পরিবার থেকে উঠে আসা স্বাস্তিক ভট্টাচার্য ২০১৯-এর যোগা অলিম্পিয়াডে অনূর্ধ্ব ১৪ বিভাগে রাজ্যের প্রতিনিধিত্ব করতে চলেছে।

এই বিষয়ে স্বাস্তিক ভট্টাচার্য জানায়, ভবিব্যতে সে যোগা নিয়েই এগিয়ে যেতে চায়। বাবা বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য মূলত পূজার্চনা করেই সংসার চালান বলেও সে জানিয়েছে। দীর্ঘ বিয়াল্লিশ বছর ধরে ক্লাবের সম্পাদকের দায়িত্ব সামলে আসা মধুসূদন মল্লিকের কথায়, এই ঘটনা ক্লাবের সাফল্যের পাশাপাশি যারা কোচ রয়েছেন তাদের সাফল্য আরও বেশি।

অন্যতম প্রশিক্ষক টিনা খাতুনও আশাবাদী তার ছাত্রকে নিয়ে। তিনি বলেন, আমরা কোচ হিসেবে স্বাস্তিকের জন্য গর্ববোধ করি। রাজ্যের হয়ে সে যোগা অলিম্পিয়াডে প্রতিনিধিত্ব করতে যাচ্ছে। ও বাঁকুড়া জেলার গর্ব। পড়াশোনার পাশাপাশি যোগাতেও যথেষ্ট প্রতিভার স্বীকৃতি রেখেছে স্বাস্তিক৷ বলেন, সকাল বিকাল নিয়মিত যোগা অনুশীলনের পাশাপাশি বাড়িতে পড়াশোনার মাঝে সময় বের করে অনুশীলন চালিয়ে গিয়েছে। তারা প্রত্যেকেই স্বাস্তিকের সাফল্য কামনা করছেন বলে তিনি জানান।