নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: না ফেরার দেশে চলে গেলেন অভিনেতা স্বরূপ দত্ত ৷ গত কয়েক দিন ধরে অসুস্থতার সঙ্গে লড়াই করে বুধবার সকালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি৷ মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর৷ রেখে গেলেন স্ত্রী এবং এক পুত্রকে৷ শনিবার গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় মল্লিকবাজার অঞ্চলে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি৷

হাসপাতাল সূত্রে খবর, বালিগঞ্জের বাড়িতে পড়ে গিয়ে মাথায় গুরুতর চোট পান এবং তখন থেকেই সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়েন। তারপরে তাঁকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় ৷ রাখা হয়েছিল ভেন্টিলেশনে তবে তাঁর শারীরিক অবস্থার কোনও উন্নতি ঘটে নি৷ এদিন সকালে চিকিৎসাজনিত সব লড়াই শেষ হয়ে যায়৷ এদিন জানা গিয়েছে, তার মরদেহ বালিগঞ্জে তার বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হবে, সেখান থেকে কেওড়াতলা মহাশ্মশানে তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে৷

ষাট সত্তরের দশকে জনপ্রিয় অভিনেতা স্বরূপ দত্তর জন্ম ১৯৪১ সালের ২২ জুন৷ সাউথ পয়েন্ট স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাশ করে বেলুড় রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যা মন্দিরথেকে আয় পাশ করেন৷ তারপরে সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক হন৷ স্কুলে পড়াকালীন তিনি উৎপল দত্তের সংস্পর্ষে আসেন, যা তার অভিনয় জীবনে প্রভাব ফেলে ছিল ৷

ষাট সত্তরের দশকে বেশ কিছু জনপ্রিয় ছবিতে অভিনয় করেছেন স্বরূপ দত্ত ৷ তখন অনেক ছবিতেই তাঁকে নায়কের ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল৷ বিশেষত তপন সিংহ পরিচালিত বেশ কয়েকটি ছবিতে প্রধান চরিত্রে তাঁকে দেখা গিয়েছে ৷

পড়ুন: চোখ দিয়েই আমাকে ধর্ষণ করা হয়েছিল: ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা এষা গুপ্তার

তাঁর অভিনীত ছবিগুলির মধ্য উল্লেখ্যযোগ্য হল- ‘আপনজন’, ‘এখনই’, ‘সাগিনা মাহাতো’ , ‘হারমোনিয়াম’, ‘অসময়’ ‘পিতা-পুত্র’, ‘মা ও মেয়ে’ ইত্যাদি৷ অপর্ণা সেন, মৌসুমী চট্টোপাধ্যায় তনুজার মতো নায়িকাদের বিপরীতে রূপোলি পর্দায় তিনি অভিনয় করেছেন৷ হিন্দিতে উপহার নামে একটি ছবিতে তিনি অভিনয় করে জাতীয় স্তরে পরিচিত পান ৷ ওই ছবিতে তাঁর বিপরীতে ছিলেন জয়া ভাদুড়ি৷