নয়াদিল্লি: ঝাঁ চকচকে, এক্কেবারে নতুন চোখ ধাঁধানো বিলাসবহুল ফ্ল্যাটগুলো সাজানো রয়েছে পরপর৷ না, ইচ্ছা থাকলেও সেসব আপনার ধরা ছোঁয়ার বাইরে৷ নয়াদিল্লির অভিজাত এলাকা নর্থ অ্যাভেনিউ সেজে উঠেছে নতুন নতুন ফ্ল্যাটে৷

রিপোর্ট বলছে কমপক্ষে ৩৬টি ফ্ল্যাট তৈরি করা হয়েছে নতুন সাংসদদের জন্য৷ প্রতিটি ফ্ল্যাট রীতিমত বিলাস বহুল ও অত্যাধুনিক সরঞ্জামে সাজানো৷ সিপিডব্লুডি বা সেন্ট্রাল পাবলিক ওয়ার্কস ডিপার্টমেন্টের তত্ত্বাবধানে গড়ে উঠেছে এই ফ্ল্যাটগুলি৷ যার মধ্যে রয়েছে আধুনিক সব ধরণের সুযোগ সুবিধা, যা সাংসদদের জন্য বিশেষ যত্ন নিয়ে তৈরি করা হয়েছে৷ ডুপ্লেক্স এই ফ্ল্যাটে রয়েছে ভূমিকম্প রোধক ও পরিবেশ বান্ধব ব্যবস্থা৷

প্রতিটি ডুপ্লেক্স অ্যাপার্টমেন্টে দুটি ফ্লোর থাকছে, রয়েছে লিফটের বন্দোবস্ত৷ সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয়, প্রতিটি ফ্ল্যাট থেকে দেখা যাবে রাষ্ট্রপতি ভবন৷ নতুন ফ্ল্যাটগুলিতে চারটি বড় বড় শোওয়ার ঘর, মডিউলার কিচেন, গ্রানাইট ফ্লোরিং, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা, ছোট একটি মন্দির, পরিচারকদের ঘর ও বেসমেন্ট পার্কিং৷

আরও পড়ুন : রাজ্য থেকে কোনও দলিত সাংসদ নেই মন্ত্রিসভায়, মোদীকে তোপ সিদ্দারামাইয়ার

বৈদ্যুতিক বিলের খরচ কমানোর জন্য প্রতিটি ফ্ল্যাটের ছাদে থাকছে সোলার প্যানেল৷ থাকছে সেন্সর লাইট৷ যা স্বয়ংক্রিয় ভাবে বন্ধ হতে পারে ও চালু হতে পারে৷ আপাতত লোকসভার সদ্য নির্বাচিত সাংসদ পাঁচতারা হোটেলে থাকছেন৷ যার জন্য বড়সড় বিল মেটাতে হচ্ছে এস্টেট বিভাগকে৷

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে কেন্দ্রীয় সরকার সাংসদদের বেসিক পে পঞ্চাশ হাজার থেকে এক লাখ করার প্রস্তাবে সায় দিয়েছিল৷ এমনকি সাংসদদের বেতন ও ভাতা সংক্রান্ত জয়েন্ট কমিটি বেতন বৃদ্ধির যে সুপারিশ করেছিল তাতে সায় দিয়েছিল প্রাইম মিনিষ্টার অফিস৷ কিন্তু কোনও কারণে সেই সুপারিশ কার্যকর হয়নি৷

আরও পড়ুন : বিক্ষোভ থেকে বাঁচিয়ে বৃদ্ধাকে ঘরে ফেরাল কাশ্মীর পুলিশ

সমাজবাদী পার্টির তৎকালীন সাংসদ নরেশ আগরওয়াল সাংসদদের মাইনে ও ভাতা বাড়ানোর দাবি জানিয়ে ছিলেন৷ লোকসভায় তিনি জানান, ক্যাবিনেট সেক্রেটারিদের থেকে সাংসদদের মাইনে অনেক কম৷ তাই সাংসদদের মাইনে বাড়াক সরকার৷ এর আগে সাংসদদের মাইনে ও ভাতা সংক্রান্ত যে সুপারিশ পার্লামেন্টারি কমিটি করেছিল তা শীঘ্রই কার্যকর করার দাবি জানিয়েছিলেন সমাজবাদী পার্টির আরেক নেতা রাম গোপাল যাদব৷

সপ্তম পে কমিশনের সুপারিশ কার্যকর করার পর ক্যাবিনেট সেক্রেটারির মাসিক বেতন এখন আড়াই লাখ টাকার বেশি৷