নয়াদিল্লি: বরাবরই কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন বিজেপি সাংসদ সুব্রহ্মণ্য স্বামী। আর এমনিতেই টালমাটাল পরিস্থিতিতে রয়েছে কংগ্রেস, তার মধ্যেই ফের বিস্ফোরক স্বামী।

সদ্য গোয়া আর কর্ণাটকে কংগ্রেস ছেড়ে একাধিক বিধায়ক যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে। কর্ণাটকে কংগ্রেস-জেডিএস জোটের বিধায়করা ইস্তফা দেওয়ার পর সেখানে টালমাটাল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। আর গোয়াতেও ১০ জন কংগ্রেস বিধায়ক যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে।

এই পরিস্থিতিতে সুব্রহ্মণ্য স্বামী বলেন, এইভাবে বিজেপির একচ্ছত্র আধিপত্যকে ভালো চোখে দেখছেন না তিনি। তাঁর মতে, এইভাবে ক্রমশ গণতন্ত্র দুর্বল হয়ে পড়বে। একইসঙ্গে কংগ্রেস দল সম্পর্কেও মন্তব্য করেন বিজেপির এই সাংসদ।

বর্তমানে কংগ্রেসে কোনও প্রেসিডেন্ট নেই। কারণ লোকসভা নির্বাচনে পরাজয়ের দায় নিয়ে পদত্যাগ করেছেন রাহুল গান্ধী। এই পরিস্থিতির সমাধান হিসেবে স্বামী নাম না করে সোনিয়া ও রাহুলের কংগ্রেস থেকে বিদায় চান। বলেন, ইটালিয়ান ও তাঁর সন্তান চলে যান। বদলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জোটবদ্ধ কংগ্রেসের মাথা হিসেবে দেখতে চান তিনি। বলেন, ‘নতুন জোটবদ্ধ কংগ্রেসের প্রেসিডেন্ট হতে পারেন মমতা। এনসিপি-রও উচিৎ সেই জোটে যোগ দেওয়া।’

গত সপ্তাহেই ১৩ জন বিধায়ক ইস্তফা দিয়েছিলেন কর্ণাটকের কংগ্রেস-জেডিএস জোট সরকারে। তারপর থেকেই সংকটে পড়েছিল কুমারাস্বামী সরকার।

অন্যদিকে, কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন গোয়ার ১০ জন বিধায়ক। বৃহস্পতিবারই তাঁরা দিল্লি যান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করতে। তাঁদের সঙ্গে দিল্লিতে গিয়েছিলেন গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী প্রমোদ সাওয়ন্ত। তিনি জানিয়েছেন, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জন্য কাউকে জোর করা হয়নি।