নয়াদিল্লি: ফের সংবাদ শিরোনামে স্বঘোষিত ধর্ম গুরু স্বামী নিত্যানন্দ৷ এবার তাঁর দাবি, তিনি যদি প্রশিক্ষণ দেন তাহলে তামিল ও সংস্কৃতে গরু কথা বলবে৷ এই বিষয়ে বৈজ্ঞানিক কিছু তথ্যও তুলে ধরেছেন তিনি৷

এই বিষয়ে একটি ভিডিও প্রকাশ করেছেন স্বামী নিত্যানন্দ৷ যে খানে তাঁকে বলতে শোনা গিয়েছে এই বিষয়ে৷ তিনি বলছেন বিজ্ঞানের সাহায্যে গরুদের কথা বলানো যেতে পারে৷ সংস্কৃত ও তামিলে কথা বলবে গরুরা৷

স্বাভাবিকভাবেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এই ভিডিও প্রকাশিত হওয়ার পর৷ অনেকেই প্রশ্ন করেছেন, কীভাবে সম্ভব হবে সেই অসাধ্য সাধন? তাঁর উত্তরও দিয়েছেন স্বামী নিত্যানন্দ৷
তিনি বলেন ‌অতিপ্রাকৃত উপায়ে গরুকে কথা বলা শেখানো যেতে পারে৷ এই কাজে সাহায্য করবে বিজ্ঞান৷ বিজ্ঞানকে ব্যবহার করেই গরুকে ভাষা শেখানো যাবে৷ ভিডিওতে তিনি বলেছেন, তিনিই প্রথম ব্যক্তি হবেন, যিনি গরুকে কথা বলা শেখাবেন, তাও বিজ্ঞানের সাহায্যে৷

গরুদের যে অবচেতন মন, তাকে ব্যবহার করে এই প্রাণীদের ভাষা শেখানো যেতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি৷ তাঁর মতে মানুষের মত এই সব প্রাণীদের বিশেষ অঙ্গ না থাকলেও তাদের অবচেতন মনকে কাজে লাগিয়ে এই অসাধ্য সাধন করা যায়৷

স্বামী নিত্যানন্দের দাবি, গরুরা বা অন্য কিছু প্রাণী, যেমন বাঁদর তাদের অবচেতন মন দিয়েই এই ধরণের প্রয়োজনীয় অঙ্গ তৈরি করে নেবে! এই তত্ব তিনি নাকি প্রমাণ করবেন বিজ্ঞান ও চিকিৎসাবিজ্ঞানের মধ্যে দিয়ে৷

ইতিমধ্যে একটি বিশেষ সফটওয়্যার নিয়ে এই ইস্যু তিনি নাকি কাজ শুরু করে দিয়েছেন৷ তাঁর দাবি খুব ভালো কাজ করছে সেই সফটওয়্যার৷ স্বষোষিত ধর্মগুরু বলেন, বাঁদর, সিংহ এবং বাঘের জন্য ওই সফটওয়্যার দিয়ে ভোকাল কর্ড তৈরি করব, যাতে তারা ভাষা বুঝতে ও বলতে পারে। মোষ এবং গরুদের ওপর এই ভোকাল কর্ড প্রয়োগ করে তাদের সংস্কৃত ও তামিল ভাষা শেখাবো।’

তাঁর দাবি নিয়ে ইতিমধ্যে হইচই পড়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়৷ রীতিমতো হাসির পাত্র হয়ে উঠেছেন তিনি৷ নেটিজেনরা একের পর এক মস্করা করে চলেছেন স্বামী নিত্যানন্দকে নিয়ে৷

এর আগে, ২০১০ সালে দক্ষিণ ভারতের স্বঘোষিত ধর্মগুরু স্বামী নিত্যানন্দের একটি সেক্স টেপ অনলাইনে ভাইরাল হয়৷ সেখানে তামিল অভিনেত্রী রঞ্জিতার সঙ্গে প্রায় বিবস্ত্র অবস্থায় দেখা গিয়েছিল নিত্যানন্দকে। সেই ঘটনায় সারা দেশে বিশেষ করে দক্ষিণ ভারতে তুমুল আলোড়ন পড়ে যায়৷ সেই ভিডিও হাতে আসে বেশ কয়েকটি তামিল চ্যানেলের। তারা সেই ভিডিও দেখানোয় হইচই পড়ে যায়।