লখনউ:  ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার হলেন উত্তরপ্রদেশের এক বিজেপি নেতা৷ তিনি আবার প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও৷ স্বামী চিন্ময়ানন্দ নামে ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে শাহজাহানপুরের আইন পড়ুয়া তরুণীকে ধর্ষণে অভিযোগ ছিল৷ উত্তরপ্রদেশেরই সহারানপুরের একটি আশ্রম থেকে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ উত্তরপ্রদেশ পুলিশের বিশেষ তদন্তকারী দল বা সিটের অফিসাররা চিন্ময়ানন্দকে গ্রেফতার করেন৷ গ্রেফতারের পর অভিযুক্ত মন্ত্রীকে হাসপাতালে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷

উত্তরপ্রদেশের ওই অভিযোগকারি তরুণী সোমবারই চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে অভিযুক্ত মন্ত্রীর বিরুদ্ধে বয়ান রেকর্ড করেছিলেন৷ সূত্রের খবর, বয়ানে তিনি জানিয়েছেন, গত এক বছর ধরে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে৷ সঙ্গে চলেছে শারীরিক নির্যাতন৷ প্রসঙ্গত, অভিযোগকারি তরুণী নিজের অভিযোগ সরাসরি পুলিশে জানাননি৷ ২৩ অগস্ট তিনি ফেসবুকে বিডিও পোস্ট করে অভিযোগ জানান৷

আরও পড়ুন : আর মাত্র একদিন, যোগাযোগ না হলে বিক্রমকে হারাবে ইসরো : সূত্র

অভিযোগকারি তরুণীর খোজ প্রথমে পুলিশ পায়নি৷ পরে রাজস্থানের জয়পুরে তাঁর খোজ মেলে৷ ততদিনে ওই তরুণীর পরিবার পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছে৷ এরপর ওই তরুণীকে আদালতে হাজির করা হয়৷ অভিযোগকারী দাবি করেন, তিনি অভিযুক্ত স্বামী চিন্ময়ানন্দ নামে ওই ব্যক্তির ভয়েই পালিয়ে বেড়াচ্ছিলেন৷ তার সঙ্গে ছিল কয়েকজন বন্ধু৷ ওই তরুণী এত দাবি করেন, প্রাথমিক ভাবে পুলিশে অভিযোগ করেও কোন কাজ হয়নি৷

ওই তরুণী প্রথমে স্বামী চিন্ময়ানন্দের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ করেন৷ পরে ধর্ষণের অভিযোগ করেন৷ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাহায্য প্রার্থনা করেছেন ওই তরুণী৷ ঘটনাটি নিয়ে রাজধানীতে রাজনৈতিক তরজা শুরু হয়েছে৷ বিজেপি বিরোধীরা বলতে শুরু করেছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ‘বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও’-এর মুখ হতে পারেন ওই অভিযোগকারী তরুণী৷ স্পষ্টতই উত্তরপ্রদেশের বেকায়দায় যোগী সরকার৷