লণ্ডন: ভারতীয় হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়ালেন এঁরা। ব্রিটিশ রাজধানীতে পাকিস্তানিদের ফেলে যাওয়া আবর্জনা সাফ করে নজির গড়লেন প্রবাসী ভারতীয়রা। তেসরা সেপ্টেম্বর লন্ডনে ভারতীয় দূতাবাস লক্ষ্য করে যথেচ্ছ বিক্ষোভ দেখায় প্রবাসী পাকিস্তানিরা। গোটা এলাকা সেই বিক্ষোভের জেরে আবর্জনায় ভরে যায়।

শুধু তাই নয়, খালিস্তানিপন্থীদের সঙ্গে নিয়ে লণ্ডনে ভারতীয় দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ দেখায় ব্রিটেনের প্রবাসী পাকিস্তানিরা৷ কাঁচের জানলা লক্ষ্য করে চলে পাথর ছোঁড়াও৷ তারপর থেকেই সেই এলাকা আর পরিষ্কার করা হয়নি। সেই সাফাইয়ের কাজে তাই নিজেরাই লেগে পড়লেন প্রবাসী ভারতীয়রা। ভারতীয় দূতাবাসের সামনের এলাকা ধুয়ে মুছে সাফ করে স্বচ্ছ ভারতের বার্তা দিলেন তাঁরা। রীতিমত নজির গড়ে পাকিস্তানিদের দিতে চাইলেন শিক্ষা।

তেসরা সেপ্টেম্বর প্রায় ১০ হাজার প্রবাসী পাকিস্তানি কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে৷ বেশ কিছু ক্ষতি হয় ভারতীয় দূতাবাসের৷ লন্ডনের মেয়র সাদিক খান বলেন এই ধরণের ঘটনা কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না৷ মেট্রোপলিটন পুলিশ ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে৷ প্রয়োজনে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷

তবে কাজের কাজ কিছুই হয়নি। কাউকেই আটক বা গ্রেফতার করা হয়নি এই ঘটনায়। তারওপর গোটা এলাকা আবর্জনায় ভরে ওঠে, যা এদিন সাফ করলেন ভারতীয়রাই। কারণ বিক্ষোভকারীরা শুধু পাথর নয়, ডিম ও সবজি ছুঁড়েছিল দূতাবাস লক্ষ্য করে। এই ঘটনায় নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগে কাঠগড়ায় তোলা হয় লণ্ডনের মেয়র সাদিক খানকে। এমনকী তাঁর ধর্ম তুলে প্রশ্ন করা হয়, যে ঠিক কোন কারণে চুপ রয়েছেন তিনি। জানতে চাওয়া হয়, ধর্মের ভিত্তিতে কোনও পক্ষপাতিত্ব চলছে না তো?

গোটা ঘটনার তীব্র নিন্দা করে নয়াদিল্লি। বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র রবীশ কুমার জানান এই ধরণের ঘটনা কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। ব্রিটেনকে এর প্রেক্ষিতে কড়া ব্যবস্থা নিতে হবে। তবে সবকিছুর উর্দ্ধে উঠে প্রবাসী ভারতীয়দের এই সৌজন্যের প্রশংসা করেছে নেটিজেনরা।