স্টাফ রিপোর্টার, ইংরেজবাজার: ভাগ্নি মৌসমের প্রাশংসা করে মামা ডালুকে আক্রমণ করলেন শুভেন্দু অধিকারী। সোমবার এমনই ঘটনার সাক্ষী থাকল মালধের বৈষ্ণবনগর।

আরও পড়ুন- পরিষেবা বন্ধ রেখে বৃহত্তর আন্দোলনের পথে এ্যাম্বুলেন্স অপারেটরস ইউনিয়ন

সোমবার মালদহের চাঁচল এবং বৈষ্ণবনগরে নির্বাচনী জনসভা করে তৃণমূল কংগ্রেস। দুই সভাতেই প্রধান বক্তা ছিলেন ওই জেলার তৃণমূল কংগ্রেসের পর্যবেক্ষপক শুভেন্দু অধিকারী। গত শনিবার মালদহে সভা করেছিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। সেই সভা থেকে বিজেপির পাশাপাশি তৃণমূল এবং বামেদেরকেও আক্রমণ করেছিলেন তিনি। সেই সময়েই পালটা সভা করার হুঁশিয়ারি দিয়েছিল তৃণমূল।

আরও পড়ুন- খিলাফতের ব্যর্থতার পরই ISIS জঙ্গিরা US বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছে

চাঁচলের সভায় কংগ্রেসকে আক্রমণ করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিশ্বস্ত সৈনিক শুভেন্দু। বৈষ্ণবনগরে আবার তাঁর নিশানায় ছিলেন মালদহ দক্ষিণের কংগ্রেস প্রার্থী। ওই কেন্দ্রের দীর্ঘদিনের সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরীকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করে শুভেন্দু অধিকারী। কেন তাঁকে ভোট দেওয়া উচিত নয় তাও ব্যাখ্যা করেন তিনি।

আরও পড়ুন- ‘লোকসভায় কংগ্রেস জিতলে পাকিস্তানে দিওয়ালি হবে’, বিস্ফোরক মুখ্যমন্ত্রী

উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে এদিনের বৈষ্ণবনগরের সভা থেকে মৌসম বেনজির নুরের প্রশংসা করেছেন শুভেন্দুবাবু। পাশাপাশি মালদহের আরেক সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরীর নিন্দা করেছেন। এই দুই ব্যক্তির মধ্যে পারিবারিক সম্পর্ক রয়েছে। সম্পর্কে তাঁরা মামা-ভাগ্নি। বরকত গণি খান চৌধুরীর পরিবারের সদস্য হওয়ার সুবাদে সমগ্র জেলায় তাঁদের বিশেষ কদর রয়েছে। তবে কংগ্রেস ছেড়ে নয়া নজির গড়েছেন মৌসম।

আরও পড়ুন- ২৬ দিনের মাথায় রিপোর্ট তলব মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের, স্বস্তিতে অনশনকারীরা

কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে আসা মৌসমের পাশে দাঁড়িয়েছেন তৃণমূল নেতা শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু শত্রুতা বজায় রেখেছেন কংগ্রেস প্রার্থী তথা মোউসমের মামা দালুর প্রতি। শুভেন্দুবাবু বলেছেন, “আবু হাসেম খান চৌধুরী মালদার রেসিডেন্ট সাংসদ নন। তাঁকে মালদার লোক পাই না। সাত বছর আমি পার্লামেন্টে ছিলাম মৌসুমকে মালদার সমস্যার কথা বলতে শুনেছি। কিন্তু কোনদিন আবু হাসেম খান চৌধুরীকে বলতে শুনিনি।”

আরও পড়ুন- নীতি আয়োগের রাজীবকুমার উড়িয়ে দিলেন রাহুল গান্ধীর আর্থিক প্রতিশ্রুতি