দেবশ্রী মাইতি, মহিষাদল: মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর শুভেন্দুর প্রথম সভা মহিষাদলে। মহিষাদলে স্মরণসভা অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন শুভেন্দু। শুক্রবার রাজ্য মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেছেন শুভেন্দু অধিকারী।

মন্ত্রীত্ব থেকে পদত্যাগ করার পর রবিবার প্রথম সভায় উপস্থিত হবেন তিনি। রবিবার পূর্ব মেদিনীপুর জেলার মহিষাদলে একটি স্মরণসভা অনুষ্ঠান রয়েছে। যেখানে উপস্থিত থাকবেন তিনি।

ইতিমধ্যে তারই প্রস্তুতি তুঙ্গে। তাম্রলিপ্ত জনকল্যাণ সমিতির আয়োজনে এই স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হবে। স্মরণ সভায় সমস্ত রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ কার্ড দিয়ে আহ্বান জানানো হয়েছে। ডান-বাম সমস্ত দলের প্রতিনিধিদের উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৩ নভেম্বর প্রয়াত হয়েছেন প্রবীণ স্বাধীনতা সংগ্রামী রণজিৎ বয়াল। তাহার জীবনকাহিনী নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে এই ধরনের স্মরণ সভার আয়োজন। অরাজনৈতিক সভা হলেও শুভেন্দু মন্ত্রীত্ব ছাড়ার পর প্রথম এই সভায় অংশ গ্রহন করবে। সেই সভা থেকেই শুভেন্দু কি বার্তা দেয় তার অপেক্ষায় রাজনৈতিক মহল।

যদিও রাজনৈতিকমহলের একাংশের মতে, এই সভা অরাজনৈতিক এই মঞ্চ। ফলে এখান থেকে রাজনৈতিক কোনও বার্তা শুভেন্দু দেবেন না বলেই মনে করা হচ্ছে। কারণ অন্তত কয়েকটি সভা থেকে তা স্পষ্ট বলেই মনে করছে রাজনৈতিকমহল। তবে এই সভা থেকে নাম না করে হয়তো শাসকদলের নেতৃত্বকে একটা বার্তা দিতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে।

অন্যদিকে, শুক্রবারই মন্ত্রীত্ব ছেড়েছেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী। এর ঠিক ২৪ ঘন্টার মধ্যেই এবার পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদলে দেখা গেল শিবসেনার পতাকা। যা নিয়ে শোরগোল ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়। যদিও কে বা কারা এই পতাকা লাগিয়েছে তা এখনও জানা যায়নি।

মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর শনিবার শুভেন্দু অধিকারীর প্রথম সভা। অরাজনৈতিক ব্যানারে সভা পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদলে। তার আগে মহিষাদলের বিভিন্ন এলাকায় দেখা গেল একাধিক শিবসেনার পতাকা। হঠাত করে শিবসেনার পতাকা কোথা থেকে এল তা নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক জল্পনাও।

তবে মহিষাদলের সভায় যে ছবি ধরা পড়েছে তাতে তৃণমূলের কোনও ছবি কিংবা ব্যানার থাকবে না বলেই জানা যাচ্ছে। এমনকি দাদার অনুগামী বলে কোনও ছবিও থাকবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।