নয়াদিল্লি: চলে গিয়েছেন তিনি৷ তবে তাঁর হাসিমুখ এখনও ভীষণভাবে টাটকা গোটা দেশের মনে৷ আক্ষরিক অর্থে রাষ্ট্রনেত্রী বলতে সুষমা স্বরাজকেই বুঝতেন বিভিন্ন সময়ে বিপদে পড়া মানুষ৷ নিজেই বলেছিলেন, মঙ্গল গ্রহ থেকেও যদি সাহায্যের ডাক আসে, আমি আছি৷ এই ভরসা যোগাবার মানুষটাই আর রইলেন না৷

প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায়৷ বেলা ৩টে নাগাদ দিল্লির লোধি রোড শ্মশানঘাটে বুধবার শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে তাঁর৷ এইমসের বিশিষ্ট চিকিৎসকরা জানান, প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী চলে গেলেন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে৷

আরও পড়ুন : ‘মঙ্গলগ্রহে সমস্যায় পড়লেও আমি সাহায্য করব’, বলেছিলেন সুষমা

বিজেপির কার্যকরী সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা জানান সুষমা স্বরাজের দেহ নয়াদিল্লিতে বিজেপির সদর দফতরে রাখা থাকবে প্রায় ঘণ্টা তিনেক৷ তাঁর বাড়িতে মরদেহ শায়িত থাকবে বেলা ১১টা পর্যন্ত৷ বেলা বারোটা নাগাদ নিয়ে আসা হবে বিজেপির সদর দফতরে৷ যেখানে তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন বিজেপির কর্মী সমর্থক ও অন্যান্য নেতারা৷

বেলা তিনটে নাগাদ তাঁকে শেষকৃত্যের জন্য নিয়ে যাওয়া হবে৷ মঙ্গলবার রাত ১০টা নাগাদ হৃদরোগে আক্রান্ত হন সুষমা স্বরাজ। দিল্লির এইমস হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হয়৷ রাখা হয় ইমারজেন্সিতে। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি৷ কিছুক্ষণ পরেই লড়াইয়ে ইতি টানেন অন্যতম জনপ্রিয় নেত্রী সুষমা স্বরাজ৷

আরও পড়ুন : ‘কথা না রেখেই চলে গেলেন দিদি’, স্মৃতির গলায় অভিমান

এই মর্মান্তিক খবর যে আসতে পারে তা দুঃস্বপ্নেও ভাবতে পারেননি কেউ৷ কারণ যে ৩৭০ ধারা বিলোপ নিয়ে কয়েক ঘন্টা আগেও ট্যুইট করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন তিনি, বাড়ছিল লাইক, কমেন্টস, কথার পিঠে কথা৷ তার মাঝে হঠাৎ এই ছন্দপতন যেন মেনে নেওয়ার নয়৷ সোশ্যাল মিডিয়া উপচে পড়ে শোকবার্তায়৷