মুম্বই: মাদক কাণ্ডে নাম জড়িয়েছে অভিনেত্রী সারা আলি খান ও শ্রদ্ধা কাপুরের। দুজনেই প্রয়াত অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের সঙ্গে ছবিতে কাজ করেছেন। ইতিমধ্যেই দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো। সারা ও শ্রদ্ধা দুজনেই বলেছেন, ছবির সেটে তাঁরা সুশান্তকে নাকি তাঁরা মাদক নিতে দেখেছেন। এই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করলেন সুশান্তের বন্ধু যুবরাজ সিং।

যুবরাজের দাবি, নিজেদের দিক থেকে নজর ঘোরাতেই সুশান্তের উপরে দোষ চাপাচ্ছেন দুই অভিনেত্রী। সুশান্তের সঙ্গে ছিছোরে ছবিতে অভিনয় করেছেন শ্রদ্ধা। এই জিজ্ঞাসাবাদে শ্রদ্ধা কাপুর জানিয়েছেন, এই ছবির শ্যুটিং চলাকালীন সুশান্ত মাদক নিতেন। কখনও শ্যুটিং এর সেটে, আবার কখনও ভ্যানিটি ভ্যানে তিনি সুশান্তকে মাদক নিতে দেখেছিলেন বলে জানান শ্রদ্ধা। তবে তিনি নিজে ড্রাগ নেওয়ার কথা অস্বীকার করেছেন।

কেদারনাথ ছবিতে সুশান্ত ও সারা একসঙ্গে অভিনয় করেছেন। সেই সময়ে সুশান্ত ও সারার মধ্যে ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়েছিল বলেও শোনা যায়। সেই ঘনিষ্ঠতার কথা স্বীকার করেছেন সারা আলি খান। একসঙ্গে তাঁরা বিভিন্ন জায়গায় গিয়েছেন। সারা এও জানিয়েছেন সুশান্ত নাকি ছবির সেটে মাদক নিতেন। কিন্তু নিজে মাদক নেননি বলে জানিয়েছেন সারা।

এই প্রসঙ্গে এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের কাছে সুশান্তের বন্ধু দাবি করেন, সারা ও শ্রদ্ধা নিজেরা নির্দোষ সাজার চেষ্টা করছেন। নিজেদের দোষ ঢাকতে তা সুশান্তের উপর চাপাচ্ছেন। যুবরাজের কথায়, শ্রদ্ধা ও সারা জানেন যে তাঁদের মাদক যোগ প্রমাণিত হলে তাঁরা কড়া শাস্তি পাবেন। আর তাই সুশান্তের উপরে দোষ দিচ্ছেন।

প্রসঙ্গত, দীপিকা, সারা, ও শ্রদ্ধা তিন অভিনেত্রীর ফোন বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। সেগুলি ফরেনসিকে পাঠানো হবে পরীক্ষার জন্য। জেরায় ড্রাগ চ্যাটের কথা স্বীকার করলেও তিনি ড্রাগ নেননি বলে দাবি করেছেন দীপিকা।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।