কলকাতা ২৪x৭: মাত্র কয়েকটা বছরেই ইন্ড্রাষ্টিকে আপন করে নিয়েছিলেন সুশান্ত সিং রাজপুত। খুব বেশি সংখ্যক অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সঙ্গে কাজ করার হয়তো সুযোগ পাননি কিন্তু অভিনয়ের মধ্যে দিয়ে জায়গা করে নিয়েছিলেন সকলের হৃদয়ে। তাইতো রাজকুমার রাও থেকে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া কিংবা অক্ষয় কুমার থেকে দিয়া মির্জা, সকলের মুখে একটাই কথা। ‘বড্ড তাড়াতাড়ি চলে গেল ছেলেটা।’

‘ধোনি-দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ ছবিতে ধোনির বাবার চরিত্রে অভিনয় করার সুবাদে সুশান্তকে খুব কাছ থেকে দেখেছেন বর্ষীয়ান অভিনেতা অনুপম খের। পর্দার ধোনির মৃত্যু সংবাদ পাওয়ার পর ভিডিওবার্তায় তো কেঁদেই ফেললেন তিনি। জানালেন, ‘আমি খুব শক্ত মনের মানুষ। লকডাউনের মাঝেও নিজেকে শক্ত রেখেছিলাম। কিন্তু আজ সুশান্তের খবরটা আমার আত্মাকে টলিয়ে দিয়েছে।’ ‘শুদ্ধ দেশি রোমান্স’ ছবিতে পরিণীতির সঙ্গে সুশান্তের রসায়ন বেশ তারিফ করেছিলেন সিনেপ্রেমীরা। সেই পরিণীতি লিখলেন, ‘সুশ, তোকে মিস করব রে বন্ধু।’

আসলে সুশান্তের সদা হাসি-খুশি ইমেজটার সঙ্গে গতকালের ঘটে যাওয়া ঘটনাকে এখনও মেলাতে পারছেন না অনেকে। ইন্ড্রাষ্টিতে খুব অল্প সময়ে এতোটা সফল হওয়ার পিছনে সুশান্তের অন্যতম ইউএসপি ছিল ‘হার্ড ওয়ার্ক।’ পর্দার ধোনিকে বাস্তবের অবিকল রূপ দিতে চেষ্টার কোনও ত্রুটি রাখেননি সুশান্ত। টানা ন’মাসের অনুশীলনে সুশান্তের অধ্যাবসায়কে কুর্নিশ জানিয়ে মৃত্যুর পর স্মৃতিচারণ করেছেন প্রাক্তন ক্রিকেটার কিরণ মোরে। সুশান্তকে একজন ক্রিকেটার বলতেও দ্বিধা করেননি তিনি।

মোরের কথায় একজন ক্রিকেটারের সমস্ত ‘বেসিক ইনস্টিংক্ট’ ছিল ওর মধ্যে। খুব সহজে সব রপ্ত করে নিয়েছিল ও। আর ধোনির হেলিকপ্টার শট অনুকরণের জন্য আন্ধেরি স্পোর্টস কমপ্লেক্সে রোজ ১০০টা করে হেলিকপ্টার শট প্র্যাকটিস করত সুশান্ত। জানিয়েছেন প্রাক্তন নির্বাচক। আর খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছেও সুশান্তের পা ছিল কিন্তু মাটিতেই। তাইতো গতবছর পটনায় নিজের গ্রামে গিয়েও ব্যাট হাতে নেমে পড়েছিলেন অভিনেতা। মৃত্যুর পর সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সুশান্তের। যেখানে দেখা যাচ্ছে পটনায় তাঁর গ্রামের কোনও একটি জায়গায় স্থানীয়দের সঙ্গে ব্যাট হাতে নেমে পেল্লাই ছক্কা হাঁকাচ্ছেন সুশান্ত।

জায়গাটি সুশান্তের গ্রাম হিসেবে দাবি করে ভিডিওতে লেখা হয়েছে, ‘গতবছরও গ্রামে এসে পড়শিদের সঙ্গে ক্রিকেট খেলেছিল।’ ভিডিওটি স্বাভাবিকভাবেই ভাইরাল হয়েছে ইন্টারনেটে। উল্লেখ্য, রবিবার বান্দ্রার ফ্ল্যাটে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃতদেহ। তাঁর আত্মহত্যার ঘটনায় স্তম্ভিত গোটা দেশ। মাত্র চৌত্রিশেই সকলকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন ‘কাই পো চে’, ‘শুদ্ধ দেশি রোম্যান্স, ‘ডিটেক্টিভ ব্যোমকেশ বক্সী’, ‘সোনচিড়িয়া’, ‘ছিছোরে’ খ্যাত অভিনেতা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।