মুম্বই- সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুতে এখনো শোকস্তব্ধ তার অনুরাগীরা। ১৪ জুন বান্দ্রার ফ্ল্যাট থেকে তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। পুলিশ প্রাথমিক তদন্ত থেকে জানিয়েছে, গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন সুশান্ত। বহুদিন ধরে অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। যদিও মানতে নারাজ তাঁর অনুরাগীরা।

অনেকেই বলছেন এই মৃত্যুর সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে কোনো রহস্য যা আত্মহত্যা বলে চাপা দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। এবার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ পেলো আরো এক নতুন তথ্য। মৃত্যুর আগে গুগল করে নিজের সম্পর্কে বেশ কিছু আর্টিকল পড়েছিলেন সুশান্ত সিং রাজপুত। সুশান্তের মোবাইলের ফরেনসিক রিপোর্ট থেকে এমনই জানা গিয়েছে।

ফরেনসিক রিপোর্ট অনুযায়ী সেদিন সকাল ১০.১৫ মিনিটে নিজের নাম গুগলে লিখে সার্চ করেন সুশান্ত। গুগল সার্চ হিস্টরি ঘেঁটে এমনই দেখা গিয়েছে। এবং তারপরে নিজের সম্পর্কে বেশ কয়েকটি আর্টিকেল পড়েন প্রয়াত অভিনেতা। মুম্বই পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করছে।

সুশান্তের মৃত্যুর ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ২৮ জনের বয়ান রেকর্ড করেছে মুম্বাই পুলিশ। এদের মধ্যে রয়েছেন সুশান্তের পরিবার বন্ধুবান্ধব এবং কর্মসূত্রে যুক্ত কয়েকজন। বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী ও তার ভাই সৌভিক চক্রবর্তীর বয়ানও সম্প্রতি রেকর্ড করেছে মুম্বাই পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে সুশান্তের শেষ ছবির অভিনেত্রী সঞ্জনা সঙ্ঘিকেও।

সুশান্তের কয়েকজন বন্ধুরা জানিয়েছেন, সুশান্ত নাকি বেশ কিছুদিন ধরে আতঙ্কে ছিলেন। তিনি প্রায়ই বলতেন কেউ তার ক্যারিয়ার ধ্বংস করে দিতে চাইছে। কেউ তাঁর ভাবমূর্তি নষ্ট করে দিতে চাইছে। এই তথ্যগুলি সামনে আসার পরেই ঘটনাকে নিয়ে আরো রহস্য দানা বাঁধছে। সম্প্রতি একটি ভিডিওতে ডিসিপি জানিয়েছেন সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃত্যুর ঘটনা প্রত্যেকটি কোণ থেকে তদন্ত করছে পুলিশ।

তিনি বলছেন, “বান্দ্রা পুলিশ এখনো পর্যন্ত ২৭ জনের বয়ান রেকর্ড করেছে। ময়নাতদন্তের ডিটেইলড রিপোর্ট পাওয়া গিয়েছে এবং চিকিৎসকরা স্পষ্ট জানিয়েছেন অ্যাসফিক্সিয়া অর্থাৎ ঝুলন্ত অবস্থায় গলায় ফাঁস লেগে মৃত্যু হয়েছে তাঁর।” ডিসিপি অভিষেক ত্রিমুখে নেটিজেন এবং সুশান্তের অনুরাগীদের পুলিশের উপর ভরসা রাখতে বলেছেন। তিনি বলছেন, “পুলিশ তদন্তের প্রতিটি দিককে খতিয়ে দেখছে।

যদি তেমন কিছু প্রকাশ্যে আসে তাহলে পুলিশ অবশ্যই মানুষ এবং সংবাদমাধ্যমকে তা জানাবে। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন রকমের তথ্য গিরে আলোচনা হচ্ছে। কিন্তু এই ব্যাপারে নিশ্চিত থাকুন যে পুলিশ কিন্তু পেশাদারিত্ব বজায় রেখে এই স্পর্শকাতর ঘটনাটির তদন্ত করছে। এই সিস্টেমের উপর ভরসা রাখুন। পুলিশ সত্যিটা সামনে আনবে নিশ্চয়ই।”

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ