রানা দাস, কলকাতা: শখের মোবাইল ফোনের মজুত ভাণ্ডারে প্রায় ৩০০ বন্ধুর নম্বর৷ কিন্তু, কোন একজনকে কল করতে গেলেই, তার নম্বর পাওয়া যাচ্ছে না৷ কন্টাক্ট লিস্টে দেখাচ্ছে মাত্র ৭০টি নম্বর মজুত আছে৷ আবার কখনও কখনও রাতভর মোবাইল চার্জ হয়েছে, অথচ ঘুম থেকে উঠে দেখা গেল চার্জই হয়নি৷ চার্জবার সেই এক দাগ দেখাচ্ছে৷ নামি-অনামি অনেক মোবাইল ব্যবহারকারীদের এই ধরণের সমস্যার মুখেই পড়তে হয়৷ আর সেই ভুক্তভোগী মুঠোফোন ব্যবহারকারীদের হাজারো সমস্যা হাসি মুখে সমাধান করে দিচ্ছেন ‘মোবাইল চিকিৎসক’৷ মুখে মুখে সেই চিকিৎসকের নাম বদলে হয়ে গিয়েছে ‘মোবাইল বাবা’৷

সূর্যসারথি সরকার৷ উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুর পুর-শহরের রামকৃষ্ণপল্লীর বাসিন্দা৷ পেশায় প্রাথমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক৷ কিন্তু, এই চেনা পেশা-পরিচয়ের বাইরে এখন তাঁর আরও একটা বিষয়ে ব্যাপক পরিচিতি দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়েছে৷ যার পোশাকি নাম হয়েছে ‘মোবাইল বাবা’৷ হ্যাঁ! শুনতে একটু অবাক লাগলেও, ইসলামপুর শহর ছাড়াও আশপাশের মানুষের কাছে তিনি এখন এই নামেই পরিচিত৷ এমন কী, বিহার রাজ্যের কিষণগঞ্জেও তাঁর মোবাইল বাবা নামটা পৌঁছে গিয়েছে৷ কিন্তু, কেন দিনে দিনে এই একটা অদ্ভুত নাম হয়ে গেল রামকৃষ্ণপল্লীর এক সময়ের চকলেট বয় সূর্যসারথির?

আরও পড়ুন: group sex-এ প্রাপ্তবয়স্ক হচ্ছেন ভারতীয় মহিলারা, বলছেন সেক্সগুরু

সবার হাতে হাতে এখন নামি-অনামি কোম্পানির স্মার্টফোন৷ এমন অনেকেই আছে যে, মোবাইল ফোনের বহু ফিচারের কথা নিজেও জানে না৷ সেটিংসের কোথায় কীভাবে কাজ করে, তাও অনেকের কাছে অজানা৷ তাই প্রায় তাদের কোন কোনও সমস্যায় পড়তে হয়৷ ছোটখাট নানান সমস্যাতে পড়তেই হয়৷ আবার এমন কিছু সমস্যা আছে, যার কারণ বহু ক্ষেত্রেই মোবাইল সংস্থার সার্ভিস সেন্টার কিংবা মোবাইল মেকানিকের কাছে দৌঁড়তে হয়৷ কিন্তু, আদতে মোবাইলে তেমন কোন সমস্যাই ছিল না৷ অজ্ঞতার জন্য বহুক্ষেত্রেই উপভোক্তার পকেট থেকে কাড়ি কাড়ি টাকা কেটে নেন সার্ভিস সেন্টার এবং মেকানিকরা৷ আর এই সমস্ত সমস্যায় হাসিমুখে সমাধান করে দিচ্ছেন সূর্যসারথি৷ যার কারণে তিনি এখন সবার কাছে মোবাইল বাবা নামেই পরিচিত হয়েছেন৷

আরও পড়ুন: প্রিন্স চার্লসকে ক্যামিলার সঙ্গে নিজে কানে ‘ফোন সেক্স’ করতে শুনেছিলেন ডায়না

এক একান্ত সাক্ষাৎকারে ইসলামপুরের এই শিক্ষক জানালেন, কলকাতার বাইরে এই রাজ্যে মূলত ২০০৩ নাগাদ মোবাইলের ব্যবহার ছড়িয়ে পড়ে৷ তখন থেকেই তিনি এই ফ্রি সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছেন৷ আসলে বাজারে নতুন মোবাইল এলেই তিনি তা কিনতেন৷ শুধু জানার আগ্রহে সমস্ত সেটিংস ঘেঁটে দেখতেন৷ম্যানুয়ালগুলো মন দিয়ে পড়তেন৷ এই ভাবেই মোবাইলের সফটওয়ার সম্পর্কে প্রচুর তথ্য মগজাস্ত করেছেন৷ প্রথমদিকে বন্ধু-বান্ধবরা কোন সমস্যায় পড়লে, তার সমাধান করেছেন৷ কিন্তু, দিনে দিনে মুখে মুখে সেই কথা আশপাশে প্রচুর ছড়িয়েছে৷ তাই দিনে তিন-চারজন তার কাছে হাজির হচ্ছেন তাদের বিগড়ে যাওয়া মোবাইল ঠিক করে দেওয়ার জন্য৷

আরও পড়ুন: দেশের বাজারে নয়া পাওয়ার ব্যাঙ্ক ওয়ান প্লাসের

তিনি আরও জানালেন, প্রায় প্রতিদিন সন্ধ্যে হলেই ইসলামপুর বাস টার্মিনাস আড্ডার আসরে যান৷ মোবাইলের নানা সমস্যা নিয়ে সেখানেই সবাই হাজির হয়ে যান৷ আবার কেউ কেউ বাড়িতেও হানা দেন৷ তবে, তাতে বিরক্তি প্রকাশ না করেই হাসিমুখে সবার সমস্যা সমাধান করে দেন তিনি৷ মজার কথা, ডাক্তারদের মতো তিনি মোবাইলের সমস্যা সমাধানের জন্য বাড়িতেও কল পান৷ তাতেও তিনি কারও কারও বাড়িতে গিয়ে হাজির হন৷ না, এই মুঠোফোনের সমস্যা হাসিমুখে সমাধান করে দেওয়ার জন্য কোন চার্জও তিনি নেন না৷ শুধু কি তাই, অনেক ক্ষেত্রে মোবাইল মেকানিকরাও ব্যর্থ হলে সূর্যের কাছেই পাঠিয়ে দেয়৷ বিষয়টা বেশ মজার ছলেই এক দশক ধরে চালিয়ে আসছেন ইসলামপুরের মোবাইল বাবা৷

আরও পড়ুন: মাত্র এক লিটার জলে ৫০০ কিমি ছুটতে পারে এই বাইক

সূর্যসারথি বললেন, ‘মূলত সফটওয়ার সংক্রান্ত সমস্যা  চোখের পলকে সামলে দিই৷ আসলে মোবাইল ফোন কিনে অনেকেই ম্যানুয়ালটা মন দিয়ে পড়ে দেখেন না৷ আবার কোন কোন ক্ষেত্রে সফটওয়ার আপডেট না করার জন্যও সমস্যা হয়’৷ তা করে দিলেই সমস্যা মিটে যায়৷ তবে সবচেয়ে বেশি সমস্যা আসে জিওনি মোবাইলের৷ ধরুন মোবাইল ৩০০ নম্বর-নাম রয়েছে৷ অথচ লিস্টে দেখা যাচ্ছে ৭০টি নাম-নম্বর৷ বেশি ভাগই সমস্যার মধ্যে রয়েছে ব্যাটারির চার্জের৷ রাতভর ব্যাটারি চার্জ দেওয়ার পরও দেখাচ্ছে কোন চার্জ নেই৷ এসবই সফটওয়ারের জন্য৷ কোন কোন মোবাইলে সেটে আবার দেখা যাচ্ছে, দুটো সিম ভরা৷ কিন্তু, ডিসপ্লেতে ক্রশ দেখাচ্ছে৷

আরও পড়ুন: ভারতীয় বিজ্ঞানীর অভূতপূর্ব আবিষ্কার ব্যাটারি ছাড়া চলবে মোবাইল

জিও গ্রাহকদের অনেকের দেখা যাচ্ছে ভোলাইট শো করছে না৷ কিন্তু, মোবাইলের সফটওয়ারটি আপডেট করলেই দিব্বি কাজ করছে৷ তিনি বললেন, সবই খুব ছোটখাট বিষয়৷ সেই সবই সমাধানের জন্যই সবাই আমার কাছে ছুটে আসে, ভরসা করে৷ এসব করে দিতে সত্যি খুব ভালোই লাগে৷ অনেকেই এর জন্য চার্জ দিতে চান৷ কিন্তু, কারও কাছে কোনদিন কিছু নিইনি৷ সারাই মোবাইল হাতে পাওয়ার পর সবার হাসিটাই সবচেয়ে বড় পাওনা মোবাইল বাবার৷

আরও পড়ুন: সাইলেন্ট অবস্থায় নিখোঁজ ফোন? জেনে নিন ফোন খোঁজার এক দারুন উপায়

- Advertisement -