প্রীতম সরকার, রায়গঞ্জ: ঐতিহ্য হারাচ্ছে ইসলামপুরের সূর্যাপুরী আম। একটা সময় ইসলামপুর মহকুমার গ্রামাঞ্চলের প্রতিটি বাড়িতে সূর্যাপুরী আমের গাছ ছিল। কিন্তু বর্তমানে সেই সমস্ত আমের গাছ আর দেখাই যায় না। স্বাদ ও সুগন্ধের জন্য বিখ্যাত এই আমের চাষে আগ্রহ বৃদ্ধিতে সরকারি উদ্যোগের দাবি তুলেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরের সূর্যাপুরী আম স্বাদ ও গন্ধের জন্য বিখ্যাত। ১৯৫৬ সালের আগে ইসলামপুর মহকুমার বিস্তীর্ণ এলাকা বিহারের মধ্যে ছিল। কৃষিকাজই ছিল মানুষের প্রধান জীবিকা।

সেসময় থেকেই এলাকায় স্বাভাবিক উদ্ভিদের মতোই অধিকাংশ জমিতেই সূর্যাপুরী আমের গাছ ছিল। আমের বাগানও ছিল প্রচুর।

জুন মাসে এই আম পাকলে প্রতি বাড়িতেই যেন উৎসব লেগে যেত। কিন্তু সময়ের পরিবর্তনের সঙ্গে-সঙ্গে সব বদলেছে। সূর্যাপুরী আমের গাছ এখন এলাকায় খুবই কমে গিয়েছে।

কয়েক বছর আগেও এলাকার কিছু আমচাষিকে সরকার থেকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল। বর্তমানে জেলায় প্রায় ২৫০ থেকে ৩০০ হেক্টর জমিতে সূর্যাপুরী আমের চাষ হয়।

ইসলামপুর মহকুমা এলাকায় এই আমের চাষ বেশি হয়। হেক্টর প্রতি ১৫ মেট্রিক টন আমের ফলন হয়। জেলায় অধিকাংই আমের বাগানই ছোট। বড় বাগান খুব বেশি নেই। স্থানীয়দের অভিযোগ, এই এলাকার বিখ্যাত আম এখন লুপ্ত হতে চলেছে।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।