কলকাতা: বাংলায় করোনায় মৃতের সংখ্যা কমিয়ে দেখানো হচ্ছে বলে আবারও রাজ্য সরকারকে তুলোধনা করলেন সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। টুইটে সিপিএম নেতার অভিযোগ, ‘করোনায় মৃ-তের সংখ্যা কমিয়ে দেখানো হচ্ছে। এটা অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে।’

সোমবারই নবান্নে রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। সোমবার বেলা ১২টা পর্যন্ত রাজ্যে ৬১ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। করোনায় এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী।

গত কয়েকদিন ধরেই রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্যের বিরোধিতা করতে দেখা গিয়েছে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলিকে। এর আগেও বিজেপির তরফে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যের বিরুদ্ধে তথ্য গোপনের অভিযোগ তোলা হয়েছিল। একইভাবে বামেরাও করোনা তথ্য রাজ্য প্রকৃতভাবে জানাচ্ছে না বলে অভিযোগ তুলেছিল।

এবার রাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা নিয়ে টুইটে সরকারকে বিঁধলেন সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। টুইটে তিনি লেখেন, ‘বিশেষজ্ঞ কমিটি বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গঠিত হয় বলেই তাঁদের কাজের স্বাধীনতা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সরকারি সার্কুলারে মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধান পদ্ধতি নির্দিষ্ট থাকলে বিশেষজ্ঞ কমিটির পক্ষে স্বাধীন ভাবে কাজ করা অসম্ভব। করোনাতে মৃতের সংখ্যা কমিয়ে দেখানো হচ্ছে। এটা অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে।’

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্য প্রশাসনের সমালোচনা করায় সোমবারই নাম না করে বিজেপির কড়া সমালোচনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রাজনৈতিক দলের আইটি সেল ভুয়ো খবর ছড়াচ্ছে। কাঁসর ঘণ্টা নিয়ে পথে নেমে ভুল বোঝানো হচ্ছে। এটা রাজনীতি করার সময় নয়।’

দেশেও বেড়েই চলেছে কোভিড-19-এর সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৫৪টি নতুন করোনা সংক্রমণের ঘটনা এবং ৫ নতুন মৃত্যুর ঘটনা সামনে এসেছে। এমন তথ্যই জানিয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রক। বর্তমানে ভারতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৪৪২১ জন, মৃত ১১৪ জন।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ন’টা পর্যন্ত ভারতে করোনা পজিটিভের সংখ্যা ৪৪২১ জন। যার মধ্যে রয়েছে ৩৯৮১টি সক্রিয় ঘটনা, তেমনই ৩২৫ জনকে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন। এদিন সকাল অবধি মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১৪ জন।