নয়াদিল্লি: এ যেন গণ অবসর। তাঁর আইপিএল দলের ক্যাপ্টেনের সহযাত্রী হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানালেন সুরেশ রায়নাও। ২০১১ বিশ্বকাপ জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল বাঁ হাতি ব্যাটসম্যানের।

গ্রেগ চ্যাপেলের জমানায় সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বদলি হিসাবে দলে এসেছিলেন সুরেশ রায়না। তারপর থেকে ধীরে মিডল অর্ডারে নিজের জায়গা পাকা করেন রায়না। এরপরে একসময় মিডল অর্ডারে ভারতীয় দলের এক নম্বর ভরসা হয়ে ওঠেন। সিএসকে থেকে জাতীয় দলে ধোনির ভরসার জায়গা হয়ে উঠেছিলেন নিজের দক্ষতায়।

লাল বলে কোনও দিন সাবলীল হয়ে উঠতে পারেনি। তবে সাদা বলে সব সময়েই ভারতীয় দলে ভরসার জায়গা ছিলেন রায়না। কিন্তু হঠাৎ করেই ধীরে ধীরে ভারতীয় দলে জায়গা হারান অল্প সময়ের অফ-ফর্মের জন্য। কিন্তু আইপিএলে ধোনি সবসময়েই তাঁর উপর ভরসা রেখেছিলেন। শুধুমাত্র বাদ ছিল সিএসকে আইপিএলে শাস্তি পাওয়ার সময়টুকু। তারপরে সিএসকে ফিরতেই ফের একজোট হয়েছিলেন।

সিএসকে এই আইপিএলে বিমান ধরার পর টিমের ছবি পোস্ট করেছিলেন। তারপর শনিবার নিজের প্রিয় অধিনায়কের সঙ্গে অবসর ঘোষণা করলেন তিনি। তবে তাঁর অবসর কোনও ঝটকা নয়। কারণ অনেক দিন দলের বাইরে থাকা রায়না নিজেও ভাবেননি আর জাতীয় দলে ফিরতে পারবেন বলে। সে দিক থেকে তাঁর সিদ্ধান্তে অবাক নন অনেকেই৷ কারণ ১৭ জুলাই, ২০১৮৷ অর্থাৎ দু’ বছরের বেশি সময় জাতীয় দলের বাইরে এই বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান৷ সবমিলিয়ে বলা যায় রায়নার দলে আসা সৌরভের বিকল্প হয়ে বিদায় ধোনির কাছের মানুষ হয়ে।

২০০৫ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় রায়নার৷ ৩০ জুলাই, ২০০৫ শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ওয়ান ডে অভিষেক হয় উত্তরপ্রদেশের এই বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যানের৷ সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ভারতীয় দলে এক দশক খেললেও টেস্টে সেভাবে দাগ কাটতে পারেননি রায়না৷ ওয়ান ডে অভিষেকের পাঁচ বছর পর টেস্ট অভিষেক হয় তাঁর৷

২৬ জুলাই, ২০২০ শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধেই টেস্ট অভিষেক হয় রায়নার৷ অর্থাৎ ওয়ান ডে অভিষেকের ঠিক পাঁচ বছর পর৷ পাঁচ বছরের টেস্ট কেরিয়ারে মাত্র ১৯টি টেস্ট খেলেছেন তিনি৷ টেস্টে ১০০০ রানের গণ্ডি টপকাতে পারেননি তিনি৷ একটি সেঞ্চুরি এবং সাতটি হাফসেঞ্চুরি-সহ ৭৬৮ রান করেন৷ তবে ওয়ান ডে ক্রিকেটে তাঁর কেরিয়ার ছিল ১৩ বছরের৷ এই সময়ের মধ্যে ২২৬টি ওয়ান ডে ম্যাচ খেলেছেন৷ পাঁচটি সেঞ্চুরি ও ৩৬টি হাফ-সেঞ্চুরি মিলিয়ে ৫, ৬১৫ রান রয়েছে তাঁর ঝুলিতে৷ আর জাতীয় দলের জার্সিতে ৭৮টি টি-২০ ম্যাচে একটি সেঞ্চুরি এবং ৫টি হাফসেঞ্চুরি-সহ ১,৬০৫ রান করেছেন তিনি৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও