নয়াদিল্লি: নির্ভয়াকাণ্ডে দোষী পবন গুপ্তার কিউরেটিভ পিটিশন খারিজ করল সুপ্রিম কোর্ট। আবেদনে প্রাণদণ্ডের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবনের আর্জি জানিয়েছিল দোষী পবন। এই নিয়ে সব প্রাজাপ্রাপ্তদের সব আবেদন খারিজ শীর্ষ আদালতে। সব কিছু ঠিকঠাক চললে মঙ্গলবার ৩ মার্চ সকালেই তিহাড় জেলে ফাঁসি হবে নির্ভয়াকাণ্ডে দোষী পবন গুপ্তা, মুকেশ সিং, বিনয় শর্মা ও অক্ষয় ঠাকুরের।

এর আগে দু’বার ফাঁসির সাজার দিন ঘোষণা হলেও পরে তা পিছিয়ে যায়। শেষমেশ ৩ মার্চ নতুন করে ফাঁসির নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। এবারও ফাঁসির দিন পিছনোর ছক ছিল দোষীদের। সেই মতো সুপ্রিম কোর্টে কিউরেটিভ পিটিশন দাখিল করে দোষী পবন গুপ্তা। প্রাণদণ্ডের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন করার আবেদন জানিয়েছিল পবন। শীর্ষ আদালত পবনের সেই আবেদন খারিজ করে দিয়েছে।

একইভাবে এর আগে সুপ্রিম কোর্টে কিউরেটিভ পিটিশন দাখিল করেছিল নির্ভয়া কাণ্ডে দোষী মুকেশ সিং, বিনয় শর্মা ও অক্ষয় ঠাকুর। ওই তিন দোষীর আবেদনও খারিজ করে দিয়েছিল দেশের সর্বোচ্চ আদালত। সব কিছু ঠিকঠাক চললে আগামী ৩ মার্চ মঙ্গলবার সকালে ফাঁসি হতে চলেছে নির্ভয়া কাণ্ডে দোষীদের।

ইতিমধ্যেই নির্ভয়াকে ধর্ষণ করে খুনে দোষী চারজনকেই তাঁদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দেওয়া হয়ছে। সেই মতো পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছে দোষীরা। দীর্ঘ টালবাহানার পর আগামী ৩ মার্চ নির্ভয়াকাণ্ডে চার দোষীর ফাঁসির দিন ধার্য করেছে আদালত।

মঙ্গলবার সকাল ৬টায় চারজনেরই ফাঁসির নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এর আগেও একাধিকবার নির্ভয়ার ফাঁসির দিন নির্ধারিত হয়েও ফের বাতিল হয়ে গিয়েছে। ১ ফেব্রুয়ারি ফাঁসি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ৩১ জানুয়ারি সেই ফাঁসি স্থগিত হয়ে যায়।

তারও আগে ২২ জানুয়ারি ফাঁসি হওয়ার কথা ছিল। তবে রাষ্ট্রপতি দোষীদের আর্জি খারিজ করার পরই ফের ফাঁসির দিন ঘোষণা করা হয়। পরে বলা হয়, সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর অন্তত ১৪ দিন সময় দিতে হয় অপরাধীদের। সেই নিয়মেই ২২ তারিখ চার জনকে ফাঁসি দেওয়া যায়নি।

বারবার ঘোষণা হয়েও দোষীদের ফাঁসির দিন পিছোনয় হতাশ হয়েছেন নির্ভয়ার বাবা-মা। তবে বিচার ব্যবস্থার প্রতি তাঁদের আস্থা রয়েছে বলেও তাঁরা জানিয়েছেন। মঙ্গলবারই মেয়ের খুনিদের চরম সাজার প্রতীক্ষায় এখন নির্ভয়ার বাবা-মা।