নয়াদিল্লি: ‘সুপ্রিম’ নির্দেশে ফাঁপড়ে রাজনৈতিক দলগুলি। দলের নেতাদের অপরাধ বা শাস্তির সব তথ্য এবার ওয়েবসাইটে দিতে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের। একইসঙ্গে নির্বাচন কমিশনকেও আদালতের এই নির্দেশ অনুযায়ী পদক্ষেপ করতে বলেছে শীর্ষ আদালত। আদালত আরও জানিয়েছে, যে কমিশন যদি এব্যাপারে যথোপযুক্ত পদক্ষেপ না করে তবে তা আদালত অবমাননা হিসেবেই গণ্য করা হবে।

রাজনীতিতে স্বচ্ছতা আনার জন্য সওয়াল চলছিল বহু দিন ধরেই। এবার সেই ব্যাপারেই কড়া পদক্ষেপ সুপ্রিম কোর্টের। রাজনৈতিক দলগুলিকে এব্যাপারে কড়া নির্দেশ শীর্ষ আদালতের। রাজনৈতিক দলের নেতা যদি কোনও অপরাধে অভিযুক্ত হন বা কোনও শাস্তি পেয়ে থাকেন তবে সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দিতে হবে ওয়েবসাইটে। এই মর্মে রাজনৈতিক দলগুলিকে নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। রাজনীতিতেও এবার স্বচ্ছতা আনতে তৎপর হয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালত।

এরই পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্ট আরও জানিয়েছে, অপরাধে অভিযুক্ত হয়ে কোনও নেতা যদি শাস্তি পেয়ে থাকেন তবে সেই তথ্য ওয়েবসাইটে দেওয়ার পাশাপাশি দিতে হবে সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায়। নাগরিকদের সংশ্লিষ্ট সেই নেতা সম্পর্কে সবরকম তথ্য জানাতে হবে সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দলগুলিকে।

একইসঙ্গে অপরাধে অভিযুক্তকে যদি কোনও রাজনৈতিক দল নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে দাঁড় করায় তবে তারও ব্যাখ্যা দিতে হবে দলগুলিকে। অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে কেন প্রার্থী করতে হল, তার ব্যাখ্যা দিতে হবে রাজনৈতিক দলগুলিকে। প্রায়ই দেশের একাধিক নির্বাচনে অপরাধীদের ভোটে লড়তে দেখা যায়। কোনও রাজনৈতিক দলের ছাতার তলায় গিয়ে দিন-কয়েক ভোটের প্রচার করেই তিনি নেতা। কোনওক্রমে ভোট বৈতরণী পেরোলেই এই নেতাই হয়ে যান আম-আদমির প্রতিনিধি।

বিভিন্ন সময়ে দেশের নানা মহল থেকে এই ব্যবস্থার বদল চেয়ে সওয়াল তোলা হয়েছে। অপরাধে অভিযুক্তকে প্রার্থী না করা নিয়ে বারবার সওয়াল উঠেছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের সেই আবেদনে সাড়া দেয়নি রাজনৈতিক দলগুলি। তবে এবারও এই বিষয়ে নির্দিষ্ট কোনও অবস্থান জানায়নি শীর্ষ আদালত। শুধু অপরাধে যুক্ত থাকলে বা অভিযুক্ত হলে তার সম্পর্কে তথ্য ওয়েবসাইটে দিতে বলা হয়েছে রাজনৈতিক দলগুলিকে।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা