চেন্নাই: চিপকের বাইশ গজে টস জিতে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ পাঠালেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদ ক্যাপ্টেন ডেভিড ওয়ার্নার৷ প্রথম ম্যাচে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সকে হারিয়ে ২০২১ আইপিএল শুরু করেছে বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স৷ সেই দলের একটি মাত্র পরিবর্তন করেছে কোহলি অ্যান্ড কোং৷ রজত পতিদারের পরির্বতে দলে এসেছেন দেবদূর পারিক্কল৷

আর প্রথম ম্যাচে কলকাতার কাছে হেরে এবারের আইপিএল শুরু করেছে গতবার প্লে-অফ খেলা সানরাইজার্স৷ এদিন দলে দু’টি পরিবর্তন করেছে৷ সন্দীপ শর্মার পরির্বতে দলে এসেছেন বাঁ-হাতি স্পিনার শাহবাজ নাদিম এবং অল-রাউন্ডার মহম্মদ নবির বদলে দলে এসেছেন জেসন হোল্ডার৷

শেষবার সানরাইজার্স ও আরসিবি মুখোমুখি হয়েছিল গত আইপিএলে এলিমিনেটরে৷ বিরাটদের হারিয়ে শেষ হাসি হেসেছিল ওয়ার্নাররা৷ এবার সেই আরসিবি-র বিরুদ্ধে প্রথম জয়ের স্বাদ পেতে মরিয়া হায়দরাবাদ৷ কোহলির আরসিবি-র হয়ে এদিন শততম ম্যাচ খেলতে নামছেন যুবেন্দ্র চাহাল৷ আর ৫০তম ম্যাচ খেলতে নামেন হর্যল প্যাটেল৷ আগের ম্যাচে বল হাতে পাঁচ উইকেট নিয়ে আরসিবি-র জার্সিতে নজির গড়েছেন তিনি৷

এই ম্যাচে দুই দলের অধিনায়কই মাইলস্টোনের সামনে৷ এদিন জিতলে বিদেশি ক্যাপ্টেন হিসেবে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ জয়ের রেকর্ডে অ্যাডাম গিলক্রিস্টকে ছুঁয়ে ফেলবেন ওয়ার্নার৷ এখনও পর্যন্ত ৩৪টি ম্যাচ জিতেছেন তিনি৷ আর ৩৫টি ম্যাচ জিতে রেকর্ড ধরে রেখেছেন প্রাক্তন অজি উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান গিলক্রিস্ট৷ তবে ওয়ার্নারের জন্য খারাপ খবর, এখনও পর্যন্ত চিপকে কোনও ম্যাচ জেতেনি সাইরাইজার্স৷ অন্যদিকে এদিন হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে ৮৯ রান করলেই প্রথম প্লেয়ার হিসেবে আইপিএলে ৬০০০ রানের মাইলস্টোন স্পর্শ করবেন কোহলি৷

সানরাইজার্স হয়দরাবাদ একাদশ: ডেভিড ওয়ার্নার (ক্যাপ্টেন), ঋদ্ধিমান সাহা, মনীশ পান্ডে, জনি বেয়ারস্টো, বিজয় শংকর, আব্দুল সামাদ, জেসন হোল্ডার, রশিদ খান, ভুবনেশ্বর কুমার, শাহবাজ নাদিম ও টি নটরাজন৷

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর একাদশ: বিরাট কোহলি (ক্যাপ্টেন), দেবদূত পারিক্কল, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, এবি ডি’ভিলিয়ার্স, ওয়াশিংটন সুন্দর, ড্যানিয়েল ক্রিশ্চিয়ান, কাইল জেমিসন, শাহবাজ আহমেদ, হর্ষল প্যাটেল, মহম্মদ সিরাজ ও যুবেন্দ্র চাহাল৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.