প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: শুরু হয়েছিল অর্জুন সিংকে দিয়ে৷ সুনীল সিংয়ের বিজেপিতে যোগদানের পর সেই বৃত্ত সম্পূর্ণ হল৷ বারাকপুর শিল্পাঞ্চলের আরও এক বিধায়ক নাম লেখালেন গেরুয়া শিবিরে৷ সুনীল সিংয়ের যোগদানের পর এবার গারুলিয়া পুরসভাও দখলের পথে বিজেপি৷

সুনীল সিংয়ের যোগদান প্রত্যাশিতই ছিল৷ গতকাল দিল্লি উড়ে যান তিনি৷ সঙ্গে নিয়ে যান গারুলিয়া পুরসভার ১২ জন কাউন্সিলরকে৷ তখনই ছবিটা পরিস্কার হয়ে যায়৷ এরপর সোমবার নোয়াপাড়ার তৃণমূল কংগ্রেসের বিধায়ক বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়, মুকুল রায়, অর্জুন সিং এবং দিলীপ ঘোষের উপস্থিতিতে গেরুয়া পতাকা হাতে তুলে নেন৷

সুনীলের সঙ্গে গারুলিয়া পুরসভার যে ১২ জন কাউন্সিলর বিজেপিতে নাম লিখিয়েছেন তাঁরা হলেন চন্দ্র ভান সিং, শীলা চৌধুরী, অসীম বর্মন, রবীন দাস, সরিতা সিং, দীপা সিং, মোনালিসা সরকার, কৃষ্ণা বল বিশ্বাস, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, অশোক সিং এবং গারুলিয়া পুরসভার একমাত্র কংগ্রেস কাউন্সিলর গৌতম বসু। এর বাইরে ভাটপাড়া পুরসভার উপপুরপ্রধান সোমনাথ তালুকদারও সেই দলে ছিলেন৷

দিল্লিতে সুনীল সিংয়ের বিজেপিতে যোগদানের পরই গারুলিয়ায় উৎসবে মেতে ওঠে সুনীল সিংয়ের অনুগামীরা। পুরসভার সামনে আনন্দে পটকা ফাটাতে শুরু করেন। বিধায়ক পুত্র আদিত্য সিংও গেরুয়া আবির খেলেন দলীয় অনুগামীদের সঙ্গে। সুনীল সিংয়ের বাড়ি থেকে সরিয়ে ফেলা হল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি।

আদিত্য সিং বলেন, “বাবা বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় আমি খুশি। শুধু বাবাই নয় মা সরিতা সিং এই এলাকার কাউন্সিলর৷ মা আজ বিজেপিতে যোগদান করল। বাবাকে তৃণমূল কংগ্রেসের কেউ বিশ্বাস করছিল না। আমার মামা অর্জুন সিং যেদিন বিজেপিতে যোগদান করল, সেদিন থেকে বাবার উপর সবাই অবিশ্বাস করতে শুরু করে। যদিও বাবা তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে কোন খারাপ কাজ করেনি। তৃণমূল কংগ্রেস বাবার বিধানসভা কেন্দ্র থেকে লিড পেয়েছিল। অথচ যারা বাবাকে সন্দেহ করত, তাদের বিধানসভায় তৃণমূল কংগ্রেস বিজেপির কাছে পরাজিত হয়েছে। বাবার সঙ্গে যে খারাপ ব্যবহার তৃণমূল নেতারা করেছে, সেটা চূড়ান্ত অপমানজনক। তাই বাধ্য হয়ে বাবা আজকে বিজেপিতে যোগ দিল।’’

আদিত্যর দাবি, এবার বারাকপুর অঞ্চলে অনেক বেশি উন্নয়ন হবে। সাংসদ অর্জুন সিং৷ বাবা নিজে বিধায়ক৷ একই সঙ্গে গারুলিয়া পুরসভাও আজ গেরুয়া হল। ফলে এখানে এবার উন্নয়নমূলক প্রচুর কাজ হবে। মানুষ উন্নয়ন চোখে দেখতে পাবে। বিধায়ক পুত্র বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর যে শ্লোগান আছে সবকা সাথ সবকা বিকাশ, সেই পথেই চলব আমরা।”

এদিকে সদ্য দলত্যাগী সুনীল সিংয়ের প্রথম প্রতিক্রিয়া, “মুখ্যমন্ত্রী যে ভাবে হিন্দি ভাষীদের সঙ্গে বাঙালি এবং অন্যদের বিভেদ তৈরি করছিলেন, তাতে আমি ভীষনই অপমানিত হয়েছি। আমাকে দলের মধ্যে সন্দেহের চোখে দেখত সবাই। অনেক অপমানিত হয়ে আমি ভারতীয় জনতা পার্টির সঙ্গে যুক্ত হলাম। বাংলায় বিজেপিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই আমার লক্ষ্য।” বুধবার সুনীল সিং ও নবাগত বিজেপি কাউন্সিলররা দিল্লি থেকে কলকাতায় ফিরবেন৷ খুব শীঘ্রই গারুলিয়া পুরসভার নতুন পুর বোর্ড গঠন করা হবে বলে বিজেপি সূত্রের খবর।

প্রত্যাশা মতই তৃণমূল ছাড়লেন সুনীল সিং, গেরুয়া হল গারুলিয়া পুরসভাও।

প্রত্যাশা মতই তৃণমূল ছাড়লেন সুনীল সিং, গেরুয়া হল গারুলিয়া পুরসভাও।#Kolkata24x7 Aditya Singh Aditya Singh Sunil Singh

Kolkata24x7 यांनी वर पोस्ट केले सोमवार, १७ जून, २०१९