কলকাতা-বারাকপুরঃ  ফের বড়সড় ভাঙনের মুখে তৃণমূল কংগ্রেসে। বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন শাসকদলের আরও এক বিধায়ক। বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন নোয়াপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক সুনীল সিং। ইতিমধ্যে দিল্লি উড়ে গিয়েছেন তৃণমূলের এই দাপুটে নেতা। সম্ভবত আগামীকাল সোমবারই বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন সুনীল। শুধু তিনি একা নন, শাসকদলের এই বিধায়কের সঙ্গেই তৃণমূল ছাড়বেন বহু কাউন্সিলর এবং অনুগামী। যা কিনা শাসকদলের কাছে অবশ্যই বড় ধাক্কা।

শুধু নোয়াপাড়ার বিধায়কই নন, তৃণমূল কংগ্রেস দলের গারুলিয়া পুরসভার পুর প্রধান সুনীল সিং। ফলে তাঁর সঙ্গে এই পুরসভার ১২ জন তৃণমূল কাউন্সিলরকেও সঙ্গে নিয়ে গিয়েছেন বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের ঘনিষ্ঠ আত্মীয়। খোদ চেয়ারম্যানের দলত্যাগে গারুলিয়া পুর বোর্ড এরফলে তৃণমূলের হাত ছাড়া হতে চলেছে। উল্লেখ্য, গারুলিয়া পুরসভায় মোট ২১ টি আসন রয়েছে। এর মধ্যে ১৯ টি ছিল তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে। বাকি দুটি আসনের মধ্যে ১ টি ছিল কংগ্রেসের ও একটি ফরোয়ার্ড ব্লকের দখলে। তৃণমূল কংগ্রেস দলের ১৯ জন কাউন্সিলরের মধ্যে পুরসভার উপ পৌরপ্রাধন সুব্রত মুখোপাধ্যায় সহ তৃণমূলের ১১ জন কাউন্সিলর এবং ১ জন কংগ্রেস কাউন্সিলর গৌতম বসু দিল্লিতে পৌঁছে গিয়েছেন।

রাজনৈতিকমহলের মতে, তাঁদের দিল্লি যাত্রা সম্ভবত বিজেপিতে যোগদান করতেই। এখন নোয়াপাড়ার বিধায়ক সুনীল সিং ও গারুলিয়া পুরসভার ওই ১২ জন কাউন্সিলরের বিজেপিতে যোগদান কার্যত সময়ের অপেক্ষা। নোয়াপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক তথা গারুলিয়া পুরসভার পুরপ্রধান সুনীল সিংয়ের সঙ্গে বিজেপিতে যোগ দিতে দিল্লি পৌঁছেছেন এই পুরসভার উপপুরপ্রধান সুব্রত মুখোপাধ্যায়ও। বিজেপি সূত্রের খবর খুব শীঘ্রই ওই ১২ জন তৃণমূল কাউন্সিলর সহ সুনীল সিং বিজেপিতে যোগদান করবেন । যদিও সুনীল সিং জানিয়েছেন, তিনি দলীয় কাউন্সিলরদের সঙ্গে নিয়ে আজমের শরীফ বেড়াতে গিয়েছেন।

লোকসভা নির্বাচনের আগেই বিজেপিতে যোগদান করেন অর্জুন সিং। মূলত লোকসভায় টিকিট পাওয়া নিয়ে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে মনমালিন্যের ফলেই দল ছাড়েন তৎকালীন ভাটপাড়া বিধানসভার প্রাক্তন বিধায়ক। এরপর থেকেই জল্পনা তৈরি হয় যে অর্জুনের ঘনিষ্ঠ আত্মীয় সুনীল সিংয়ের বিজেপিতে যোগদান শুধু সময়ের অপেক্ষা। কিন্তু সেই সময় নোয়াপাড়ার এই বিধায়ক সাফ জানিয়ে দেন যে, তাঁর সঙ্গে বিজেপির কোনও কথা হয়নি। এমনকি বিজেপিতে যোগদানের কোনও প্রশ্নই আসে না।

লোকসভা নির্বাচনের পরও সুনীলের বিজেপি যোগ নিয়ে রাজনৈতিকমহলে নতুন করে ফের শুরু হয় জল্পনা। কিন্তু দেখা যায় তিনি নয়, বিজেপিতে যোগ দেয় তাঁর ছেলে। সম্প্রতি যখন একের পর এক পুরসভা হাতছাড়া হচ্ছে তৃণমূলের তখন সুনীলকে বিশেষ দায়িত্ব দেয় তৃণমূল কংগ্রেস। বারাকপুরে সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে আনা হয় তাঁকে। খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে এই দায়িত্ব দেন। কিন্তু শেষমেশ কি নোয়াপাড়ার এই বিধায়ককে ধরে রাখতে পারবেন দলনেত্রী? তা জানতে শুধু সময়ের অপেক্ষা…