স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: ঋণের দায়ে মানসিক অবসাদে আত্মহত্যা করলেন এক ব্যক্তি। মালদহের মোথাবাড়ি থানার পঞ্চানন্দপুর দামোদর টোলার ঘটনা। মৃতের নাম দীনেশ মণ্ডল। পেশায় শ্রমিক।

পরিবারের দাবি, মেয়ের বিয়ের জন্য দেড় লক্ষ টাকা মহাজনের কাছ থেকে ধার নেন তিনি। তা শোধ করতে না পারায় বেশ কয়েকদিন ধরেই মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন দীনেশবাবু। তার জেরেই তিনি আত্মঘাতী হন৷

আরও পড়ুন: হাতে-হাত মিলিয়ে সন্ত্রাস দমনের পাঠ ভারত-পাকিস্তানের

মৃতের স্ত্রী রেবা মণ্ডল জানান, দুই ছেলে ও দুই মেয়ে নিয়ে তাঁদের অভাবের সংসার। এর মধ্যেই ছোট মেয়ের বিয়ের ঠিক হয়। মেয়ের বিয়ের খরচ সামলাতে প্রায় দেড় লক্ষ টাকা ধার করতে হয় মহাজনের কাছে।

গত মাসের ২৬ তারিখ ছোট মেয়ে মাম্পি মণ্ডলের বিয়ে দেন মালদহের মানিকচক এলাকার বাসিন্দা রূপকুমার মণ্ডলের সঙ্গে। কিন্তু এরপর থেকেই দেনা শোধ করা নিয়ে বেশ চিন্তায় ছিলেন দীনেশবাবু।

আরও পড়ুন: দেশহীন রোহিঙ্গা ঘুসির জোরে চাইছে আত্মসম্মান

গতকাল বাড়ির পাশের আম বাগানে বিষ পান করেন তিনি। এরপর গ্রামবাসীরা তাঁকে উদ্ধার করে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে। আজ ভোররাতে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

প্রতিবেশী গৌর মণ্ডল জানান, একদিকে অভাবের সংসার অন্যদিকে দেড় লক্ষ টাকার ঋণ নিয়েই চিন্তায় ছিলেন দীনেশ মণ্ডল। আর সেই কারণেই এভাবে আত্মহত্যা করলেন।

আরও পড়ুন: ‘আমাদের মধ্যে চুলোচুলির সম্পর্ক’

কোচবিহার শহরের তিন নম্বর ওয়ার্ডে মানসিক অবসাদে আত্মঘাতী হলেন ক্যানসার আক্রান্ত এক বৃদ্ধ। মৃতের নাম সুভাষ মণ্ডল (৬২)। কোচবিহার শহর সংলগ্ন শালবাগানে তার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার উদ্ধার করা হয়।

পরিবারের দাবি আজ ভোরে একটি লাইননের দড়ি নিয়ে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যান তিনি। এরপর তার ভাই খোজাখুঁজি করতে করতে শালবাগানে এলে, তাকে গাছের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান।

আরও পড়ুন: চিটফান্ড ইস্যুতে মমতা-সরকারকে দুষলেন অধীর

পরিবার ও প্রতিবেশীদের দাবী দীর্ঘদিন থেকেই ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন এই বৃদ্ধ। মানসিক অবসাদ সহ্য করতে না পেরেই আত্মহত্যা বলে অনুমান। মৃতদেহটি উদ্ধার করেছে পুন্ডিবাড়ি থানার পুলিশ। দেহটি ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।