মুম্বই: সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে ‘সুই ধাগা’ ছবির পেপি ট্র্যাক ‘সব বাড়িয়া হ্যঁয়’৷ জানা যাচ্ছে এই গানটি নাকি একেবারেই ছবিতে ঢোকাবার ইচ্ছা ছিল না পরিচালকের৷ তবুও পরিচালকের বিরুদ্ধে গিয়ে গানটি শ্যুট করিয়েছেন বরুন ধাওয়ান৷

ছবির অন্যান্য কলাকুশলীরা বাধ সাধলেও তাদের কোনও কথাই শোনেননি বরুন৷ ছবিতে বরুন ধাওয়ান মানেই নাচ-গান৷ নিজের সেই স্টাইল বজায় রাখতে ছবিতেও সেরম একটা গান রাখতে চেয়এছিলেন তিনি৷ ছবির থিমের সঙ্গে গানটি একেবারেই যাবে না বলে পরিচালক তাঁর কথায় সায় দেননি৷ ভিডিওয়র শেষে দেখা গিয়েছে বরুন গোটা গান, নাচ স্বপ্নে দেখছিলেন৷

অনুষ্কা শর্মা তাঁর পাশে বসে বলে গেলেন এমন কোনও গানই ছবিতে থাকবে না৷ সম্পূর্ণ পারিবারিক ছবি৷ তো বরুন বা অনুষ্কা কারও নিজস্ব স্টাইলই ছবিতে থাকবে না৷ বরুনের পরিচালকের বিরুদ্ধে গান শ্যুট করা, পুরো ব্যাপারটাই নিছকই মজা৷ মজার ছলেই বানানো হয়েছে ভিডিওটি৷

ছুঁচ-সুতোই এখন বরুন এবং অনুষ্কার সঙ্গী৷ ছবির চিত্রনাট্য অনুযায়ী, ঠাকুরদার মৃত্যুর পর মৌজির পারিবারিক সেলাইয়ের ব্যবসার মারাত্মক ক্ষতি হয়৷ যার কারণে আর্থিক সমস্যায় ভুগতে শুরু করে তাঁর পরিবার৷ বাবার কাছে নিত্যদিন কোন না কোনও কারণে ভালোমন্দ কথা শুনতে হয় তাঁকে৷ এমনকি বাইরেও একই অবস্থা৷

যে মালিকের কাছে মৌজি কাজ করে, সে মৌজিকে মানুষ বলেও জ্ঞান করে না৷ টাকার পরিবর্তে মালিক নিজের বিয়েতে তাকে কুকুর বানিয়ে অথিতিদের মনোরঞ্জন করে৷ আর কিছু টাকার বিনিময় মৌজিক সবকিছু হাসি মুখে করে৷ অন্যদিকে মমতা, মৌজির স্ত্রী, গরীব ঘরের মেয়ে হলেও আত্মসম্মানবোধ অনেকখানি৷ মূল্যের বিনিময় কিছুতেই সম্মান খোয়াবার পাত্রী সে নয়৷ শুশুড়বাড়িতে দিন রাত খেটেও পরিবর্তে নায্য সম্মান টুকুও পায় না সে৷

মমতার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন অনুষ্কা৷ পরিস্থিত ধীরে ধীরে এম রূপ নেয় যে মৌজি এবং মমতাকে তাদের পরিবারের থেকে আলাদা হয়ে যেতে হয়৷ নতুন করে সেলাইয়ের ব্যবসা শুরু করার কথা ভাবে তারা৷ মৌজি-মমতার প্রচেষ্টায় কতদূর পৌঁছতে পারবে তারা৷ সফল হবে কিনা সবের উত্তর পাওয়া যাবে এ বছর সেপ্টেম্বরের ২৮ তারিখ৷ সিনেম্যাটোগ্রাফি দেখে দর্শক খানিক ‘দম লাগাকে হাইশা’র সঙ্গে মিল খুঁজে পেয়েছেন৷ পাওয়ারই কথা, কারণ পরিতালক একই৷ শরত কাটারিয়া৷ কিন্তু পরিচালকের উপর পূর্ণ আস্থা আছে সিনেপ্রেমীদের৷