কলকাতা: বাগান প্রশাসনে আসতে কোমর বেঁধে নেমেছেন সুব্রত ভট্টাচার্য৷ আর তাঁকে আটকাতে মোক্ষম ডোজ নিয়ে হাজির শাসকগোষ্ঠী৷ মোহনবাগানের আসন্ন নির্বাচনে ফুটবল সচিব পদে মুখোমুখি লড়াইয়ে নামতে চলেছেন ক্লাবের দুই ঘরের ছেলে। সুব্রত ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধে শাসক গোষ্ঠীর প্রার্থী হতে চলেছেন সত্যজিৎ চট্টোপাধ্যায়।

প্রথমবার ফুটবল সচিব হওয়ার জন্য বাগানে নজিরবিহীন লড়াই হতে চলেছে গুরু ও শিষ্যের মধ্যে৷ বৃহস্পতিবার শাসকগোষ্ঠীর বৈঠকে এই নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হলেও কেউই সরকারিভাবে মুখ খোলেননি৷ সূত্রের খবর, ময়দানে চেনা বাবলু দা-র বিরুদ্ধে শাসকগোষ্ঠীর তালিকায় দু’জনের নাম ছিল সত্যজিৎ ও চুনী গোস্বামী৷ তবে, আলোচনার পর প্রথমজনকেই বেছে নেওয়া হয়েছে বলে খবর৷ সুব্রতর মতো সত্যও ফুটবলার হিসেবে বাগানকেই বোঝেন৷ বহু ট্রফি এনেছেন ক্লাবে সত্য। সহকারি কোচও হয়েছেন৷ বর্তমানে সবুজ-মেরুনের টেকনিক্যাল কমিটির সদস্য। সুব্রতর কোচিংয়ে খেলেছেন সত্যজিৎ।

এদিকে, বলরাম চৌধুরী সচিব পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বর্তমান সচিব অঞ্জন মিত্রের বিরুদ্ধে। অর্থ সচিব পদে দেবাশিস দত্তের বিরুদ্ধে লড়বেন বিধাননগর পুরসভার তৃণমূল কাউন্সিলর বানীব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল সাংসদ তথা প্রাক্তন ফুটবলার প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিরোধী গোষ্ঠী থেকে নিজেদের দলে টেনে আনার পর বৃহস্পতিবার আবার সত্যজিৎকে আসরে নামিয়ে মাস্টার স্ট্রোক দিলেন টুটু বসুর শাসক গোষ্ঠী৷ শোনা যাচ্ছে প্রাক্তন ফুটবলার শ্যামল বন্দ্যোপাধ্যায়, শিবাজী বন্দ্যোপাধ্যায়কে কর্মসমিতিতে আনতে চাইছে শাসক দল৷

মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিন অর্থাৎ ২০ এপ্রিল সাংবাদিক সম্মেলনে প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শাসকরা। অন্যদিকে, বিরোধীদের প্যানেলে খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, দুই তৃণমূল বিধায়ক অশোক ঘোষ, তমোনাশ ঘোষ থাকতে পারেন বলে খবর।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।