স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিজেপিতে যাওয়া নিয়ে তৃণমূলের অনেকেই যখন শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সমালোচনা করছেন তখন কাননের রাজনৈতিক ভবিষ্যতের জন্য শুভকামনা জানালেন তাঁর সদ্য প্রাক্তন সহকর্মী তথা তৃণমূল বিধায়ক সুব্রত মুখোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার তিনি বললেন, ‘দলের থেকে ব্যক্তি বড় নয়। নেতাজি, চিত্তরঞ্জন কংগ্রেস ছেড়েছিলেন। তাতে কংগ্রেসের কোনও ক্ষতিবৃদ্ধি হয়নি। দল দলের মতো চলবে। ঈশ্বর ওর মঙ্গল করুক।’

বান্ধবী বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে বুধাবার বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের হাত থেকে পদ্ম পতাকা হাতে তুলে নিয়েছেন দিদির ‘প্রিয় কানন’। তারপর থেকে স্বাভাবিকভাবেই শোভন বিরোধী মন্তব্য ধেয়ে আসছে ঘাসফুল শিবির থেকে৷ শোভন পদ্ম-পতাকা হাতে নেওয়ার পরই তাঁর স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়ও বলেছেন , “ওঁর রাজনৈতিক উত্থানের সবটা দেখেছি।

শুরু থেকে দেখেছি। আজ পতনের সূচনাটা দেখলাম। যেদিন মাটিতে পরবে সেদিনটাও দেখার অপেক্ষায় রইলাম।” সেদিক থেকে শোভনের ব্যাপারে দলের বর্ষীয়ান নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের এমন মন্তব্য যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষকরা৷

দলের থেকে ব্যক্তি বড় নয়- দলবদলে অভ্যস্থ সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মুখে একথাটা শুনে অনেকেই বলছেন তিনি সিপিএমের স্টাইলেই নিজের প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন৷ প্রসঙ্গত তিনি তৃণমূলে যোগ দিয়ে কলকাতার মেয়র হয়ে ফের কংগ্রেসে ফিরে গিয়েছিলেন। আবার তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন ২০১১-র ভোটের আগেই।

উল্লেখ্য, শোভন-বৈশাখীর দলবদলের সময় দিল্লিতে বিজেপি দফতরে হাজির ছিলেন দেবশ্রী রায়৷ যদিও তিনি দলবদল করেননি। তৃণমূলের অন্দরমহলে এককালে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত দেবশ্রী রায়৷ জানা গিয়েছে, দেবশ্রী গেরুয়া শিবিরে যোগ দিলে তিনি যোগ দেবেন না বলে বেঁকে বসেছিলেন শোভন। তার পরই দেবশ্রীকে নিরস্ত করেন বিজেপি নেতারা। সূত্রের খবর, রায়দিঘির তৃণমূল বিধায়ককে বিজেপি পার্টি অফিসে দেখে অবাক হয়ে যান দলের নেতারাও। ব্যাপারে আক্ষেপের সুরে পঞ্চায়েত মন্ত্রী বলেন, ‘ও এদিকে না ওদিকে কিছু বোঝা যাচ্ছে না। ওর সঙ্গে দেখা হলে খারাপ লাগবে।’