স্টাফ রিপোর্টার, কাটোয়া: মঙ্গলবার কাটোয়া বইমেলার মঞ্চ থেকে কার্যত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে তোপ দিলেন কবি সুবোধ সরকার। কাটোয়া বইমেলা উদ্বোধন করতে গিয়ে তিনি বললেন– “সাড়া পৃথিবীতে ২৬ কোটি মানুষ বাংলা বলতে পারে। একজন বাঙালি হিসেবে আমার গর্ব হয়। এত মানুষ একসঙ্গে বলতে পারে– কোনও শক্তি নেই যা আমাদের শেষ করতে পারে। কাটোয়া বইমেলাও সেই লড়াইটা লড়ছে। এখনকার মানুষকে, এখানকার পাঠককে, কাটোয়া বইমেলার সমস্ত সদস্যকে আমি অভিনন্দন জানাই। এই লড়াইয়ে আমরা সবাই আছি।”

সোমবার রাতে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হয় লোকসভায়। দীর্ঘ বিতর্কের পর লোকসভায় পাশ হয়ে গেল Citizenship Amendment Bill বা নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। সোমবার দুপুরে লোকসভায় এই বিল পেশ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এরপর দীর্ঘ বিতর্কের পর রাত ১২ টা নাগাদ পাশ হয় সেই বিল।

এই বিলের সমর্থনে ভোট পড়েছে ৩১১ টি ও বিপক্ষে ৮০টি। এদিন সকাল থেকেই এই বিলকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয় সংসদ। কংগ্রেস, তৃণমূল সব সব বিরোধী দলের তরফেই এই বিলের বিরোধিতা করা হয়। পরে সব প্রশ্নের জবাব দেন অমিত শাহ। অনেকের মতে, নাগরিকত্ব সংশোধন হলে বহু মানুষকে বিশেষ করে বাঙালিতে প্রবল অসুবিধের মুখে পড়তে হবে।

এই বিলের বিরোধিতা করে সুবোধ সরকার বলেন, “আজ একজন বাঙালি নোবেল পুরস্কার গ্রহণ করেছেন সুইডেনে। সুতরাং বাংলা সব দিক থেকে এগিয়ে। যারা মধ্যরাতে বিল এনে পরিকল্পনা করে বাঙালিকে কোপ মারে, তারা দেখুক চোখ খুলে বাংলাকে, বাঙালিকে কখনও শেষ করা যাবে না। বাংলাকে যে মুহূর্তে মারবে, বাংলা সেই মুহূর্তে আরও উঠে দাঁড়াবে।”

এর পরেই তিনি বলেন, “কোনও বিল, কোনও খাল বাংলাকে আটকাতে পারবে না। বাংলা যে গরিমার ভেতরে আছে, যে গৌরবের ভেতরে আছে, যে ভালবাসার ভেতরে আছে, বাংলা সেখান থেকে আরও আরও উঠে দাঁড়াবে।”

সিটিজেন সিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিলের বিরোধিতা করে প্রতিবাদ চলছে দেশের বিভিন্ন অংশ সহ উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলিতেও। ছয় দশক পুরনো নাগরিকত্ব বিল সংশোধন করে পাকিস্তান, বাংলাদেশ, আফগানিস্তানের অ-মুসলিমদের ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতে সাহায্য করবে। লোকসভায় কংগ্রেস এই বিলের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছে। তাঁদের বিশ্বাস, “নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ভারতীয় সংবিধান বিরোধী একইসঙ্গে ধর্মনিরপেক্ষ নীতি, সংস্কৃতি এবং সভ্যতা বিরোধী”।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

Tree-bute: রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও