আগরতলা: পরিবর্তনের জমানায় ত্রিপুরার মাটিতে বিজেপির অন্যতম কাণ্ডারি ছিলেন৷ দলের প্রতি ক্ষোভ রেখেই ঘর ওয়াপসির পথে সুবল ভৌমিক৷ বিজেপির পোস্টার দেওয়া অফিসে বসেই কংগ্রেসে ফিরে যাওয়ার কথা জানিয়ে দিলেন তিনি৷ সেই সঙ্গে ইঙ্গিত দিলেন- একাধিক মন্ত্রীও দলত্যাগের পথে হাঁটছেন৷

নির্বাচনী প্রচারে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী আসছেন আগরতলায়৷ আর বিজেপি ত্যাগ করে কংগ্রেসে ফিরতে চলা সুবল ভৌমিক জানিয়েছেন রাহুলজির সামনেই তিনি ফের দলে যোগ দেবেন৷ সাংবাদিকদের তিনি জানান, রাজ্যে বাম আমলের অপশাসন রুখতেই তিনি চেয়েছিলেন যে করেই হোক সরকারের পতন৷ সেটা হয়েছে৷ কিন্তু বিজেপিতে ‘বার্ডেন’ হয়ে থাকতে চাই না৷ এরপরেই সুবল ভৌমিক কণ্ঠে বিজেপি নেতৃত্বের প্রতি ক্ষোভ ঝরে পড়ে৷

ত্রিপুরার দুটি লোকসভা কেন্দ্র৷ দুটি কেন্দ্রেই গতবারের বিজয়ী সিপিএম এবারও তাদের প্রার্থী ঘোষণা করে দিয়েছে৷ শুরু হয়েছে প্রচার৷ কংগ্রেসও তাদের প্রার্থী দিয়েছে৷ আবার বিজেপির জোটে থেকেও আলাদা লড়াই করছে শরিক আইপিএফটি৷ বিজেপির মঙ্গলবারই তাদের প্রার্থী জানাবে৷

সম্প্রতি ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেসের দায়িত্ব নিয়েছেন রাজা প্রদ্যোত কিশোর দেববর্মা৷ তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পরেই বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার হাওয়া তৈরি হয়েছে৷ উপজাতি এলাকার ভোট ব্যাংকে নামছে ধস৷ রাজনৈতিক মহলের ধারণা, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে আন্দোলন চলাকালীন মাধববাড়ি এলাকায় উপজাতিদের উপর গুলি চালানোর ঘটনায় সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ তীব্র হয়েছে৷ এই সূত্র ধরে আইপিএফটি ও বিজেপির মধ্যে বাড়তে থাকা দূরত্বকে হাতিয়ার করে কংগ্রেস তাদের হারানো জমি পুনরুদ্ধারে কোমর কষে নেমে পড়েছে৷ তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে আরও কয়েকটি উপজাতি সংগঠন৷

ইতিমধ্যেই কংগ্রেসে ফিরেছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সমীর রঞ্জন বর্মণ৷ তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে সখ্যতা করায় তাঁকে দল থেকে দূরে রাখা হয়েছিল৷ তবে সমীরবাবুর পুত্র সুদীপ রায়বর্মণ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতেই আছেন৷ রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী তিনি৷ সম্প্রতি স্বাস্থ্য দফতরের কিছু অনুষ্ঠানে তাঁর অনুপস্থিত থাকায় বিজেপির সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের অবনতি হচ্ছে বলেও গুঞ্জন ছড়ায়৷ পিতার মতো তিনিও কি দলত্যাগ করে ফের কংগ্রেসে ফিরবেন ? উঠছে এই প্রশ্ন৷