ওয়াশিংটন : বায়ুদূষণ যে সব এলাকায় বেশি, সেখানে করোনার প্রকোপ বেশি হতে পারে। কার্ডও ভাসকুলার রিসার্চ নামক এক ম্যাগাজিনে প্রকাশিত সমীক্ষা বলছে বায়ুদূষণ করোনা হওয়ার আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয় ১৫ শতাংশ পর্যন্ত। গোটা বিশ্ব জুড়ে করোনা পরিস্থিতির বাড়বাড়ন্তের অন্যতম কারণ এই বায়ুদূষণ।

ইউরোপে এর হার প্রায় ১৯ শতাংশ, উত্তর আমেরিকায় ১৭ শতাংশ ও পূর্ব এশিয়ায় বায়ুদূষণের ফলে করোনা হওয়ার হার ২৭ শতাংশ।

এই সমীক্ষার সিভিআর পেপার জানাচ্ছে যদি সব এলাকায় বায়ুদূষণের পরিমাণ তুলনামূলকভাবে কম, সেখানে করোনা ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা বেশ কম। বিশেষ করে যেখানে জ্বালানির মাধ্যমে বায়ুদূষণের হার কম, সেখানে করোনা কম ছড়িয়েছে বলে সমীক্ষা জানাচ্ছে। শীতকালে বাড়ে বায়ুদূষণের হার।

ফলে আসন্ন শীতকালে বাড়তে পারে করোনা সংক্রমণ। শুধু তাই নয় ক্রমশ বেড়ে চলা বায়ুদূষণও করোনার প্রকোপ বাড়াতে পারে বলে সমীক্ষা জানাচ্ছে। ইতালি ও চিনের ওপর করা এক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে শীতকালে ক্রমাগত বেড়ে গিয়েছে করোনার সংক্রমণ।

আর ভারতে বায়ুদূষণ সেই পরিমাণকে আরও বাড়িয়ে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। রিসার্চ বলছে প্লাজমা থেরাপি মৃত্যুর হার কমাতে পারেনি। এই কারণে শীতকালে মাস্ক পরার অভ্যাসটা আরও জোরদার করতে হবে। বারবার হাত ধুতে হবে। সামাজিক দূরত্ব অবশ্যই মেনে চলতে হবে। গবেষকরা বলছেন গরমকালে অ্যারোসোলের ছোট ছোট কণার কারণে এই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছিল, শীতকালে রেসপিরেটরি ড্রপলেট সরাসরি সম্পর্কে আসার ফলে করোনা আরও বাড়তে পারে।

এই সমীক্ষা চালিয়ে ছিলেন প্রফেসর জোস লেলিভেল্ড, প্রফেজস থমাস মুনজেল, ডঃ অ্যান্ড্রিয়া পোজার। সমীক্ষায় আরও বলা হয়েছে, সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং-এর বর্তমান নিয়মগুলি কোভিড -১৯ এর বিস্তার বন্ধ করতে যথেষ্ট নয়। অনেক ক্ষেত্রেই দেখে গিয়েছে রেসপিরেটরি ড্রপলেট ৬ ফুটের বেশি দূরত্ব অতিক্রম করতে পারে।”

চেক রিপাবলিকে বায়ুদূষণ থেকে করোনা হওয়ার হার ২৯ শতাংশ, চিনে ২৭ শতাংশ, জার্মানিতে ২৬ শতাংশ, সুইৎজারল্যান্ডে ২২ শতাংশ, বেলজিয়ামে ২১ শতাংশ, নেদারল্যান্ডে ১৯ শতাংশ, ফ্রান্সে ১৮ শতাংশ, সুইডেন ১৬ শতাংশ, ১৫ শতাংশ ইতালিতে, ব্রিটেনে ১৪ শতাংশ, ব্রাজিলে ১২ শতাংশ, পর্তুগালে ১১ শতাংশ, আয়ারল্যান্ডে ৮ শতাংশ, ইজরায়েলে ৬ শতাংশ, অস্ট্রেলিয়াতে ৩ শতাংশ, নিউজিল্যান্ডে ১ শতাংশ।

দেশে এবং বিদেশের একাধিক সংবাদমাধ্যমে টানা দু'দশক ধরে কাজ করেছেন । বাংলাদেশ থেকে মুখোমুখি নবনীতা চৌধুরী I