কুয়ালালামপুর: বিদেশে আটকে পড়ে ভারতীয় শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী। করোনা আতঙ্কের মাঝে দেশে ফিরতে পারছেন না তাঁরা।

ফিলিপিন্সে পড়াশোনার জন্য গিয়েছিলেন তাঁরা। কিন্তু করোনা ভাইরাসের জন্য সেখানকার স্কুল-কলেজ সব বন্ধ। এই অবস্থায় ওই ছাত্রছাত্রীরা দেশে ফেরার জন্য কুয়ালালামপুরে হাজির হয়।

কুয়ালালামপুর থেকে তারা দিল্লি বা কলকাতা বা দেশের অন্য শহরে ফিরবে বলে বিমান ধরার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু সেখান থেকে দেশে ফেরার সমস্ত বিমান ভারত সরকার বাতিল করেছে। এদিকে ফিলিপিনস সরকারও তাদের দেশে ঢুকতে দিচ্ছে না। এই অবস্থায় কুয়ালালামপুরে রীতিমত বিপদে পড়েছেন ছাত্রছাত্রীরা। সকাল থেকে খাওয়া-দাওয়া থাকার সমস্যায় দিশেহারা ছাত্রছাত্রীরা।

এদের মধ্যে একজন কলকাতার দমদমের বাসিন্দা। রোজারি নামে ওই ছাত্রীর নাম রামদুলাল মান্না। তিনি ফিলিপিন্সে ডাক্তারি পড়তে গেছিলেন। সোমবার রাতে ফ্লাইটে কুয়ালালামাপুরে আসেন। কিন্তু তার পরে সব দেশের বিমান পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়ায় নির্দেশ কার্যকরী হয়। ফলে তিনি ফিরতে পারছেন না। ফেরার আর্জি জানিয়ে ট্যুইট করেছেন। কিন্তু কেউ কোন পদক্ষেপ নেয়নি। চিন্তায় তার পরিবার।

হু এর পরিসংখ্যান বলছে, সারা বিশ্বে ১ লক্ষ ৮০ হাজার করোনা আক্রান্ত হয়েছেন মঙ্গলবার পর্যন্ত। সংস্থার কর্ণধার আরো বলেন, একেক দেশে একেক রকম গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস। তাই কোন দেশ কিরকম পদক্ষেপ নেবে সেই দেশের প্রশাসনকে ঠিক করতে হবে।

উল্লেখ্য আমেরিকায় ইতিমধ্যেই প্রতিষেধকের শুরু হয়েছে। এক মহিলার উপর সেই প্রতিষেধক পরীক্ষা করা হয়েছে। আশার কথা শুনিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন, বিশ্বের ইতিহাসে এই প্রথম কোন ভ্যাকসিন এত তাড়াতাড়ি তৈরি করা হলো শুধু তাই নয় অ্যান্টিভাইরাল থেরাপির মাধ্যমে চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে গবেষণা করছে মার্কিন বিজ্ঞানীরা।