স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: বর্ধমান ডেন্টাল কলেজে পরীক্ষা চলাকালীন এক ছাত্রী অসুস্থতার জেরে মৃত্যুর পর ছাত্র বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠল কলেজ চত্বর৷ অভিযোগ, কলেজ কর্তৃপক্ষের গাফিলতির কারণে তাঁর মৃত্যু হয়৷ সেই প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখাল ওই কলেজের পড়ুয়ারা৷ যদিও ওই ছাত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় সংবাদ মাধ্যমের কাছে মুখ খুলতে চাননি কলেজের অধ্যক্ষ জীবন মিশ্র৷

পড়ুয়ারা জানিয়েছেন, বর্ধমান ডেন্টাল কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী স্বাতী সিং (২৬)৷ গত ৫ ফেব্রুয়ারি পরীক্ষা চলাকালীন অসুস্থ হয়ে পড়েন। একটানা ছয় ঘণ্টা ধরে তাঁর পরীক্ষা নেওয়া হয়। পরীক্ষা চলাকালীনই সে বমি করে। অসুস্থতা বোধ করায় অন্য সহপাঠীরা কলেজের অধ্যক্ষ সহ বিভাগীয় প্রধানদের কাছে বারবার আবেদনও জানান তাঁর চিকিৎসার জন্য৷ একইসঙ্গে তাঁর পরীক্ষা নিয়ে তাঁকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করে।

কিন্তু কেউই তাঁদের কথায় কান দেননি বলে অভিযোগ। টানা ছয় ঘণ্টা পরীক্ষা দেওয়ার পর স্বাতী সিংহ এতটাই অসুস্থ হয়ে পড়েন যে তিনি ট্রেনে বাড়ি ফিরতে পারেননি। বাধ্য হয়েই তাঁকে গাড়ি ভাড়া করে হুগলির রিষড়ার সিএন রোডের বাড়িতে পাঠানোর উদ্যোগ নেন পড়ুয়ারা। বাড়ি ফিরেই সে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে৷ তাকে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয়।

সেখানেই ৬ ফেব্রুয়ারি তাঁর মৃত্যু হয়৷ এই ঘটনায় কলেজের ছাত্রছাত্রীরা তিন শিক্ষকের দুর্ব্যবহার ও মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ আনে। ওই শিক্ষকদের নির্যাতনেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন বলে দাবি পড়ুয়াদের। পড়ুয়াদের দাবি, মৃতের ময়নাতদন্তের রিপোর্টেও উল্লেখ করা হয়েছে তার উপর মানসিক চাপের জন্যই তার অবস্থার আরও অবনতি ঘটে।

এদিকে এই ঘটনার প্রতিবাদে ডেন্টাল কলেজে পোস্টার ও অধ্যক্ষকে স্মারকলিপিও দেয় পড়ুয়ারা। গত ১১ ফেব্রুয়ারি বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেন স্বাতীর সহপাঠীরা। পড়ুয়াদের অভিযোগ, এদিন কলেজের অধ্যক্ষ জীবন মিশ্রের কাছে তাঁরা স্বাতী সিং-এর মৃত্যু নিয়ে আলোচনা করতে যায় তাঁরা৷ তখন অধ্যক্ষ জানান আগে থানায় অভিযোগ প্রত্যাহার করতে হবে। তারপর এই নিয়ে আলোচনা হবে। ক্ষুব্ধ পড়ুয়ারা এরপর একত্রিত হয়ে কলেজে বিক্ষোভ শুরু করেন। যদিও এই বিষয়ে অধ্যক্ষ কিছু বলতে অস্বীকার করেন।