স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: সকালে পথ অবরোধ, দুপুরের পর বিডিও অফিসের সামনে ধর্ণা৷ দিনভর স্কুল পড়ুয়াদের প্রতিবাদ বিক্ষোভে উত্তপ্ত হয়ে রইল বাঁকুড়ার রাইপুর সবুজবাজার এলাকা৷ তাদের দাবি পছন্দমত স্কুল শিক্ষকদের কাছে প্রাইভেট টিউশন পড়ার অনুমতি দিতে হবে প্রশাসনকে৷

অবরোধকারী ছাত্র ছাত্রীদের দাবি, প্রশাসনের তরফে নির্দেশ জারি করা হয়েছে স্কুল শিক্ষকরা আর প্রাইভেট টিউশান করতে পারবেননা। ফলে কোনও স্কুল শিক্ষক আর ছাত্র ছাত্রীদের প্রাইভেট টিউশান পড়াতে রাজী হচ্ছেন না। এই অবস্থায় শিক্ষাবর্ষের শুরুতেই তারা সমস্যায় পড়ছে।

স্কুল শিক্ষকদের কাছেই প্রাইভেট টিউশান পড়তে চেয়ে রাইপুর হাই স্কুল, গার্লস হাই স্কুল সহ এলাকার কয়েকটি স্কুলের ছাত্র ছাত্রীরা শনিবার সকাল থেকে বাঁকুড়া-ঝাড়গ্রাম রাজ্য সড়কের উপর রাইপুর সবুজ বাজারে অবরোধ করে। ফলে বেশ কিছুক্ষণ অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে ব্যস্ততম এই রাজ্য সড়কটি। পরে পুলিশ এসে পড়ুয়াদের সাথে কথা বলে অবরোধ তুলে দেয়৷

তবে সমস্যা যে মেটেনি তার প্রমাণ মিলল দুপুরের পর৷ রাইপুর বিডিও অফিসের সামনে ফের ধর্ণায় বসে তারা৷ তাদের দাবি মাত্র আর হাতে গোনা কয়েকটা দিন পরেই উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। সারা বছর স্কুলের শিক্ষকের কাছে তারা প্রাইভেট টিউশান পড়ে এসেছে। এবার একেবারে শেষ মুহূর্তে তাঁরা যদি আর না পড়াতে পারেন, তাহলে ক্ষতি হবে সেই ছাত্র ছাত্রীদেরই।

বাঁকুড়া-ঝাড়গ্রাম রাজ্য সড়কের উপর রাইপুর সবুজ বাজারে দীর্ঘক্ষণ পথ অবরোধে অংশ নেওয়ার পর স্থানীয় ব্লক অফিসে ধর্ণায় বসার সিদ্ধান্ত নেয়। খবর পেয়ে ছাত্র ছাত্রীদের সঙ্গে আলোচনা করতে ছুটে যান বিধায়ক বীরেন্দ্রনাথ টুডু।

আন্দোলনরত ছাত্র ছাত্রীদের পক্ষে সুরজিৎ কুম্ভকার, সুস্মিতা মহাপাত্র, সুরবিতা চ্যাটার্জ্জীদের দাবী, আমরা আমাদের পছন্দ মতো শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট টিউশান পড়বো। এবিষয়ে প্রশাসন কোন পদক্ষেপ নিতে পারবেননা। এমনকি তাদের শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশান বন্ধ করতে কেউ বা কারা হুমকি দিচ্ছে বলে তাদের অভিযোগ। এই অবস্থায় অনেক শিক্ষক আর প্রাইভেট টিউশান পড়াতে চাইছেনা। যতক্ষণ না পর্যন্ত তাদের দাবি পূরণ না হয় ততক্ষণ অবস্থান আন্দোলন চলবে বলে ছাত্র ছাত্রীরা জানিয়েছে।

বিধায়ক বীরেন্দ্রনাথ টুডু বলেন, ছাত্র ছাত্রীদের সঙ্গে কথা বলেছি। এখন আন্দোলনের সময় নয়, সামনে পরীক্ষা। তাদের দাবি নিয়ে তিনি প্রশাসনিক স্তরে কথা বলবেন বলে এদিন জানিয়েছেন বিধায়ক৷