কলকাতা- জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে ঢুকে পড়ুয়াদের উপর অত্যাচারের অভিযোগ উঠেছে দিল্লি পুলিশের বিরুদ্ধে। জানা যাচ্ছে বেশ কয়েকজন পড়ুয়া গুরুতর চোট পেয়েছেন। এই ঘটনার প্রতিবাদে সামিল হয়েছে সারা দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পড়ুয়ারা। সামিল হয়েছেন কলকাতার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ও আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারাও।

রবিবার প্রায় মধ্যরাতে রাস্তায় নামেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা। প্রথমে তাঁরা জড়ো হন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের চার নম্বর গেটে। শীতের রাতে মশাল নিয়ে বেরিয়ে শুধু জামিয়া মিলিয়ার ঘটনারই প্রতিবাদ করেননি। পাশাপাশি দেশের অর্থনীতি, বেকারত্ব, ইত্যাদি বিষয়ও তাঁদের স্লোগানে উঠে আসে।

আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পার্ক সার্কাস মোড়ে এসে জমায়েত করেন। পার্ক সার্কাস ক্যাম্পাসের পাশাপাশি, নিউ টাউন ক্যাম্পাসের ছাত্রছাত্রীরাও রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ মিছিল শুরু করেন। রাত ৩টে নাগাদ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ও আলিয়া বিশ্ববিদ্যালেয়র পড়ুয়ারা এক জায়গায় জমায়েত করেন।

এই জমায়েতে জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে প্রতিবাদের ডাক দেন ছাত্রছাত্রীরা। তাঁদের মূল বক্তব্যই হল, ছাত্র পরিচয় নিয়ে একসঙ্গে লড়তে হবে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরুদ্ধে। ভারতের সংবিধানকে অক্ষত রেখে মোদী-শাহ সরকারের পতনের দাবিতে সোচ্চার হন তাঁরা। এক ছাত্রের কথায়, ভয় পেয়ে পিছু হটে গেলে চলবে না। ক্যাবের জন্য ভোগান্তি হবে হিন্দু ও মুসলিম উভয়েরই। তাই ধর্ম ভুলে ছাত্রদের পরিচয় নিয়ে লড়তে হবে এই পরিস্থিতির বিরুদ্ধে। দেশ বাঁচাতে হবে। কারণ ছাত্র ঐক্যের সামনে অন্যান্য সব শক্তি ক্ষুদ্র।

দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। বেশ কিছু ভাইরাল ভিডিওয় উঠে এসেছে ছাত্রছাত্রীদের উপরে পুইশের মারধরের কিছু দৃশ্য। এই নিয়েই প্রশ্ন উঠছে আর সারা দেশের পড়ুয়ারা এর বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।