স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: পড়া না পারায় চতুর্থ শ্রেণীর এক ছাত্রকে বেত দিয়ে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠল৷ অভিযোগের তির স্কুলের শিক্ষকের বিরুদ্ধে৷ অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম সুজয় যাদব৷ ঘটনাটি ঘটেছে মালদহ জেলার ইংরেজবাজারের মহেশতলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

ছাত্রের পরিবারের অভিযোগ, গত সপ্তাহের বৃহস্পতিবার ওই ছাত্র পড়া না পারায় বেধড়ক মারধর করে তার শিক্ষক৷ এমনকি এই মারধরের কথা বাড়িতে জানানো হলে আরও মারধর করা হবে বলে হুমকি দেয় ওই শিক্ষক।

আরও পড়ুন: বাঁকুড়ায় বিশেষ খাম প্রকাশ করল ভারতীয় ডাক বিভাগ

সেই ভয়ে ছাত্র বাড়িতে কিছু জানায় না। কিন্তু পাঁচ দিন ধরে ওই ছাত্র স্কুলে যেতেই চাইছিল না৷ স্কুল যাওয়ার জন্য চাপাচাপি করা হলে সে বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে স্কুল কামাই করে যাচ্ছিল৷ সাধারণত ওই ছাত্রের স্কুলের প্রতি অনীহা না থাকায় সন্দেহ হয় পরিবারের৷ ছাত্রের বাবা-মা বিষয়টি জানার জন্য চাপ দিতে থাকলে সে এক সময় গোটা ঘটনা বিস্তারিত বলে৷

এরপরই স্কুল কর্তৃপক্ষ তথা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যানের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন ওই ছাত্রের বাবা শঙ্কর ঘোষ৷। প্রথমে বিষয়টি নিয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ বিশেষ আগ্রহ দেখায় না৷ তখন ওই ছাত্রের বাবা ইংরেজবাজার থানায় অভিযোগ দায়ের করলে বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেন প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান।

আরও পড়ুন: ভারসাম্যহীন মহিলাকে পুলিশের হাতে তুলে দিল একদল যুবক

ওই ছাত্রের বাবার দাবি, তাঁর ছেলে আচমকাই স্কুল যাওয়া বন্ধ করে দেয়৷ স্কুলের নাম শুনলে একটা আতঙ্কের ছাপ ফুটে উঠত ওই ছাত্রের মুখে৷ প্রথম দিন বিষয়টায় গুরুত্ব না দিলেও পরে পরিবারের সদস্যদের সন্দেহ হয়৷ ওই ছাত্রকে কেন স্কুল যাচ্ছে না জিজ্ঞাসা করলে সে নানা রকম অজুহাত দিতে থাকে৷ ঠিক কি কারণে স্কুল যেতে তার অনীহা তা স্পষ্ট করে না৷

তখনই পরিবারের সন্দেহ হয় স্কুল যেতে না চাওয়ার নেপথ্যে নিশ্চয়ই বড় কোনও সমস্যা লুকিয়ে রয়েছে৷ তখন শঙ্করবাবু তার ছেলেকে গোটা ঘটনা বিস্তারিত জানাতে বলেন৷ জানালে তাঁর ছেলের ভয়ের কোনও কারণ নেই বলেও আশ্বাস দেন তিনি৷ ওই ছাত্র তার বাবাকে গোটা ঘটনা জানালে হতবাক হয়ে যান শঙ্করবাবু৷ তিনি জানান, শাসন করা ভাল৷ কিন্তু শাসন এমন হবে যেখানে শিশুরা বুঝবে তাদের ভুল৷ তারা যাতে নিজেদের ভুল শুধরে নিতে পারে সেই সুযোগ তৈরি করে দিতে হবে৷ শাসনের অর্থ কেবল মারধর করা বা ভয় দেখানো নয়৷

আরও পড়ুন: মহানায়কের স্মৃতি আঁকড়েই বেঁচে আছে নতুগ্রাম