টরন্টো: প্রথম কানাডিয়ান হিসেবে গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতে দেশে বীরাঙ্গনার সম্মান পাচ্ছেন বিয়াঙ্কা আন্দ্রেস্কু। মাত্র ঊনিশ বছর বয়সে গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতে গোটা দেশজুড়ে হইচই ফেলে দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের নতুন রানি। মিসিসাউগায় নিজের হোমটাউনে এবার সম্মানিত হলেন বিয়াঙ্কা। প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর উপস্থিতিতে বিয়াঙ্কার সমর্থনে এক বিরাট মিছিল দেখল শহরের রাজপথ। হাজার-হাজার সমর্থকদের উপস্থিতিতে সেই মিছিলে বিয়াঙ্কাকে নিয়ে উচ্ছ্বাস যেন ছাপিয়ে গেল সবকিছু।

একইসঙ্গে দেশের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম বিজয়ীকে বিশেষ সম্মান জানিয়ে শহরের রাজপথ বিয়াঙ্কা আন্দ্রেস্কুর নামে নামকরণ করলেন মিসিসাউগার মেয়র বনি ক্রম্বি। শহরের রাজপথের নতুন নাম রাখা হয়েছে ‘আন্দ্রেস্কু ওয়ে’। সেলিব্রশন স্কোয়্যারে আন্দ্রেস্কুকে ঘিরে ‘শি দ্য নর্থ’ স্লোগানে মেতে ওঠেন সমর্থকেরা। উল্লেখ্য, সদ্য-সমাপ্ত যুক্তরাষ্ট্র ওপেন ফাইনালে সেরেনা উইলিয়ামসের ২৪তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয় বিলম্বিত করে কানাডার প্রথম টেনিস প্লেয়ার হিসেবে কোনও গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের নজির গড়েন আন্দ্রেস্কু। ফ্লাশিং মেডোয় মেগা ফাইনালে মার্কিন কিংবদন্তিকে ৬-৩, ৭-৫ ব্যবধানে পরাস্ত করেন আন্দ্রেস্কু।

শহরের রাজপথে কানাডার জাতীয় পতাকা হাতে সেলিব্রেশনে মেতে ওঠেন আন্দ্রেস্কু নিজেও। গোটা ঘটনায় আপ্লুত কানাডার প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম বিজয়ী বলেন, ‘আমি অভিভূত। এই সাফল্যের পিছনে অনেক পরিশ্রম লুকিয়ে রয়েছে। রয়েছে অনেক ওঠা-পড়া। বিয়াঙ্কার প্রশংসায় পঞ্চমুখ কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেন, ‘সকল কানাডাবাসীর কাছে বিয়াঙ্কা একজন অনুপ্রেরণা। তবে তরুণ প্রজন্মের কাছে সেই অনুপ্রেরণা অনেক বেশি। কারণ বিয়াঙ্কা দেখিয়ে দিয়েছে তরুণরা চাইলে সবকিছু করতে পারে।’

এনবিএ চ্যাম্পিয়নশিপে টরোন্টো র‍্যাপটর্সের শিরোপা দখলের পর বিয়াঙ্কার যুক্তরাষ্ট্র ওপেন জয় দেশের খেলাধূলায় সম্প্রতি এক আলাদা মাত্রা যোগ করেছে। টরন্টো র‍্যাপটার্সের ‘উই দ্য নর্থ’ স্লোগানই বিয়াঙ্কার ক্ষেত্রে পরিবর্তিত হয়েছে ‘শি দ্য নর্থ’ স্লোগানে। টরন্টো মেয়র জন টরি আবার ১৬ সেপ্টেম্বর দিনটিকে ‘বিয়াঙ্কা আন্দ্রেস্কু ডে’ নামে ঘোষণা করেছেন।