প্রতীকী ছবি৷

বিশ্বজিৎ ঘোষ, কলকাতা: মানুষের যৌন লালসারও শিকার হতে হচ্ছে রাস্তার সারমেয়দের৷ আর, যে কারণে, রাস্তার সারমেয়রাও শিকার হচ্ছে ধর্ষণের৷ শুধুমাত্র তাই-ই নয়৷ ধর্ষণের শিকার হতে হচ্ছে রাস্তার প্রসূতি-সারমেয়কেও৷ এবং, রাস্তার কোনও সারমেয়র উপর যৌন অত্যাচারের এমন নানা ঘটনার তালিকা থেকে আবার বাদ পড়ছে না কলকাতাও৷

মানুষের খাদ্য হিসেবে ব্যবহারের জন্যেও যে নিখোঁজ হয়ে যাচ্ছে রাস্তার সারমেয়রা, শুধুমাত্র তাও নয়৷ অন্য নানা কারণেও বিভিন্ন রাস্তা থেকে তারা নিখোঁজ হচ্ছে৷ তেমনই, রাস্তার সারমেয়দের উপর বিভিন্ন উপায়ে অত্যাচার হচ্ছে বিভিন্ন স্থানে৷ ওই সব অত্যাচারের মধ্যে রয়েছে তাদের উপর যৌন নিগ্রহের বিষয়টিও৷ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ওই যৌন নিগ্রহের বিষয়টি ধর্ষণের আকার নিচ্ছে৷ এবং, মানুষের কাছেই ধর্ষণের শিকার হচ্ছে রাস্তার সারমেয়রা৷ তাদের উপর যৌন অত্যাচারের এই ধরনের ঘটনা কোনও কল্পকাহিনি নয়৷ যে কারণে, বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন উপায়ে রাস্তার সারমেয়দের উপর অত্যাচারের পাশাপাশি তারা যেভাবে ধর্ষণের শিকার হচ্ছে, সে সব বিষয়ে যারপরনায় উদ্বিগ্ন এবং চিন্তিত সারমেয় তথা পশুপ্রেমী থেকে শুরু সমাজের বিভিন্ন অংশের বহু সচেতন মানুষ৷

মাস ছ’য়েক আগের ঘটনা৷ দক্ষিণ কলকাতার একটি এলাকায় রাস্তার সারমেয়দের দেখভাল করতেন এক মহিলা৷ তবে, সমস্যার শুরু হয় অন্য কারণে৷ কেননা, দক্ষিণ কলকাতার ওই এলাকার স্থানীয় বাসিন্দাদের একটি অংশ চাইছিল যে, সেখানকার রাস্তায় থাকতে পারবে না কোনও সারমেয়৷ যে কারণে, ওই এলাকার রাস্তার সারমেয়দের উপর বিভিন্ন উপায়েdog.09 অত্যাচার শুরু হয়৷ ওই অত্যাচারের হাত থেকে এক প্রসূতি-সারমেয়কেও ছাড় দেওয়া হয়নি৷ প্রহারের জেরে মারাত্মক ভাবে জখম হয় ওই প্রসূতি-সারমেয়৷ ওই অবস্থায় একটি নালা থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়৷ এর পর চিকিৎসার জোরে ওই প্রসূতি-সারমেয় সুস্থ হয়ে ওঠে৷ তবে, সুস্থ হয়ে উঠলেও কী হবে! তার পরেও নিস্তার মেলেনি তার৷ কেননা, প্রসূতি ওই সারমেয়কে ধর্ষণ করা হয়৷ ওই ভাবে যৌন অত্যাচারের সময় তার পা বেঁধে রাখা হয়েছিল বলেও জানা গিয়েছে৷

সূত্রের খবর, মানুষের কাছে যে ওই প্রসূতি-সারমেয় ধর্ষণের শিকার হয়েছে, তার প্রত্যক্ষদর্শীরও খোঁজ মিলেছিল৷ তবে, কোনও এক অজ্ঞাত কারণে, ওই প্রসূতি-সারমেয়কে ধর্ষণের জন্য কোনও মানুষের বিরুদ্ধে পুলিশে আর অভিযোগও দায়ের হয়নি বলে জানা গিয়েছে৷ অথচ, রাস্তার কোনও সারমেয়কে ধর্ষণ তো বটেই, তার উপর কোনও রকমের অচ্যাচার হলেও আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়৷ সেজন্য পুলিশে অভিযোগও দায়ের করতে হয়৷ সারমেয় তথা পশুপ্রেমী, অধ্যাপিকা দেবযানী চট্টোপাধ্যায়ের কথায়, ‘‘আইন থাকলেও নেই যথাযথ সচেতনতা৷ এমনও অনেকে রয়েছেন, যাঁরা কোনও পশুকে ঘৃণা করেন না৷ কিন্তু, আইনের বিষয়ে সেভাবে সচেতনতা না থাকায়, তাঁরা বুঝতে পারেন না রাস্তার কোনও কুকুর আক্রান্ত অথবা জখম কিংবা অসুস্থ হলে, কী করতে হবে৷’’ তেমনই আবার, যথাযথ  সচেতনতার অভাবেই, পুলিশে অভিযোগ জানানোর ক্ষেত্রেও দেখা দেয় সমস্যা৷ তার উপর, রাস্তার সারমেয়দের বিষয়টি বহু ক্ষেত্রে গুরুত্বহীন হওয়ার জন্যেও সমস্যা দেখা দেয়৷ কাজেই, বিষয়টি এমনও দাঁড়ায় যে, রাস্তার কোনও সারমেয় ধর্ষণের শিকার হলেও কী হবে! এই ধরনের ঘটনার থেকেও অনেক বড় সমস্যা সামলাতে হয় পুলিশকে৷

তবে, রাস্তার সারমেয়দের ধর্ষণের বিষয়টি এত সহজে ছেড়ে দেওয়ারও পক্ষেও নয় সারমেয় তথা পশুপ্রেমী সহ সমাজের বিভিন্ন অংশের বহু সচেতন মানুষ৷ এবং, যে কারণে, এ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন সময় মানুষের কাছে রাস্তার সারমেয়দের ধর্ষণের ঘটনায় অভিযোগও হয়েছে পুলিশে৷ অধ্যাপিকা দেবযানী চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘২০১৫-য় মুম্বইয়ের একটি এলাকায় একটি মেয়ে কুকুরের সঙ্গে জোর জবরদস্তি যৌনতা করছিলেন ৪৮ বছরের এক ব্যক্তি৷ কুকুরকে ধর্ষণের ওই ঘটনা দেখে ফেলে পশুপ্রেমী দুই কিশোর৷ ওই ঘটনায় ওই দুই কিশোর এতটাই রেগে গিয়েছিল যে, তারা ওই ব্যক্তিকে হত্যা করে৷’’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘কয়েকটি ঘটনার জেরে আগে থেকেই অবশ্য ওই ব্যক্তিকে সন্দেহ করছিল ওই দুই কিশোর৷ কেননা, তাদের এলাকায় কয়েকটি কুকুরছানার মৃত্যু হয়েছিল৷ ওই মৃত্যু স্বাভাবিক ছিল না বলে জানা গিয়েছিল৷ পরে অবশ্য প্রকাশ্যে আসে যে, কুকুরছানা এবং কম বয়সি বিভিন্ন কুকুরের সঙ্গে বিভিন্ন সময় পাশবিক আচরণ করেছেন ওই ব্যক্তি৷’’ এখানেই শেষ নয়৷

অধ্যাপিকা দেবযানী চট্টোপাধ্যায়ের কথায়, ‘‘এক মেয়ে-কুকুরকে ধর্ষণের জন্য মহারাষ্ট্রের নারায়ণ পাথের ৫২ বছরের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছিল বিশ্রামবাগ থানার পুলিশ৷ এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসে ২০১৩-র নভেম্বরে৷ ওই ব্যক্তি যখন বাড়িতে কুকুরের সঙ্গে যৌনতায় লিপ্ত ছিলেন, সেই সময় ওই ঘটনা দেখে ফেলেন তাঁর এক প্রতিবেশী৷ কুকুরকে ধর্ষণে অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির পরিবার থাকতো কর্ণাটকে৷ সেখান থেকেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়৷ ধর্ষণের শিকার ওই মেয়ে-কুকুরটিকে পরে উন্ড্রির একটি অ্যানিম্যাল হোমে পাঠানো হয়৷’’ মানুষের কাছে ধর্ষণের শিকার হয়েছে কোনও সারমেয়, এ দেশে এমন ঘটনা আরও রয়েছে৷ কখনও তা প্রকাশ্যে আসে, কখনও আবার তা চাপা পড়ে যায় বিভিন্ন কারণে৷ আর, তার জন্য অন্যতম কারণ হিসেবে যথাযথ সচেতনতার অভাব রয়েছে বলেও মনে করছে সারমেয়দের নিয়ে কাজ করে এমন বিভিন্ন সংগঠন৷ মানেকা গান্ধীর পিপল ফর অ্যানিম্যাল-এর পশ্চিমবঙ্গ শাখার ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রসেনজিৎ দত্ত বলেন, ‘‘মানুষের কাছে রাস্তার কুকুরকেও ধর্ষণের শিকার হতে হচ্ছে৷ এই ধরনের ঘটনা এ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন সময়ে হচ্ছে৷’’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘কোনও কুকুরকে ধর্ষণের জন্য দোষীর বিরুদ্ধে যাতে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়, তার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা জারি রয়েছে৷’’

কিন্তু, রাস্তার কোনও সারমেয়কেও কেন মানুষের যৌন লালসার শিকার হতে হচ্ছে? অধ্যাপিকা দেবযানী চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘দক্ষিণ কলকাতায় প্রসূতি ওই কুকুরকে ধর্ষণ করে হয়তো ওই মহিলার উপর আক্রোশ মেটাতে চাওয়াdog.10 হয়েছে৷ কেননা, ওই এলাকায় রাস্তার কুকুরদের দেখভাল করতেন ওই মহিলা৷ আর, সেখানকার বাসিন্দাদের একটি অংশ চাইছিল, যাতে ওই এলাকায় না থাকে রাস্তার কোনও কুকুর৷’’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘এই ভাবে রাস্তার কোনও কুকুরকে ধর্ষণ করে হয়তো ধর্ষকাম অথবা নিষ্ঠুর প্রকৃতির কোনও মানুষ তার ক্রোধ প্রকাশ করে৷’’ পর্ণোগ্রাফি-র বিভিন্ন ওয়েবসাইটে এমন ভিডিও রয়েছে, যেখানে কোনও পুরুষ সারমেয় অথবা পুরুষ ঘোড়ার সঙ্গে যৌনতা করছেন কোনও মানুষ (মহিলা)৷ তা হলে কি, কোনও সারমেয়কে ধর্ষণের পিছনে কারণ হিসেবে ওই ধরনের পর্ণ-ভিডিও-র প্রভাবও থাকতে পারে?

প্রসেনজিৎ দত্ত বলেন, ‘‘সব সময় যে ওই ধরনের পর্ণ-ভিডিও-র প্রভাব পড়ছে, তাও নয়৷ কেননা, এমনও দেখা গিয়েছে, কোনও কুকুরকে ধর্ষণ করেছে যে মানুষ, তিনি ওই ধরনের ভিডিও দেখেননি৷’’ তবে, অধ্যাপিকা দেবযানী চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘ওই ধরনের পর্ণ-ভিডিও-তে যে মহিলাকে কুকুর অথবা ঘোড়ার সঙ্গে যৌনতায় লিপ্ত হতে দেখা যাচ্ছে, তিনি হয়তো অর্থের বিনিময়ে তা করছেন৷ এই ধরনের ভিডিও যাঁরা দেখেন, তাঁরা হয়তো যৌনসুখ অনুভব করছেন৷ তবে, এই সব বিষয় অস্বাভাবিকতা ছাড়া অন্য কিছু নয়৷ আইনে যেটা স্বীকৃত নয়, তা তো বেআইনি৷ আর, ওই ধরনের পর্ণ-ভিডিওর মাধ্যমে বেআইনি কার্যকলাপকেই প্রচার করা হচ্ছে৷’’ মনোবিদ এবং গবেষক সঞ্চিতা পাকড়াশির কথায়,  ‘‘এমনও হতে পারে, কাম উত্তেজনা এতটাই বেশি যে, কুকুরকে ধর্ষণ করেছে৷ তবে, কুকুরকে ধর্ষণ করেছে মানুষ, এটা বিকৃতকাম ছাড়া অন্য কিছু নয়৷ একই সঙ্গে দেখতে হবে, কোনও কুকুরকে ধর্ষণ করেছে যে মানুষ, সেই মানুষ কতটা সুস্থ৷’’

ওই ধরনের পর্ণ-ভিডিও-র প্রভাবও কি পড়তে পারে মানুষের কাছে কোনও সারমেয়র ধর্ষণের ঘটনায়? সঞ্চিতা পাকড়াশি বলেন, ‘‘যৌনতার সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের কল্পনাও যুক্ত থাকে৷ কল্পনা হিসেবেও হয়তো ওই ধরনের পর্ণ-ভিডিওর অস্তিত্ব রয়েছে৷ তবে, এটা বিকৃতকাম ছাড়া অন্য কিছু নয়৷ বিকৃতকামের মাত্রা এমনই পর্যায়ে পৌঁছয় যে, হয়তো মানুষের সঙ্গে যৌনতায় তৃপ্ত হচ্ছে না বলে কুকুরকে বেছে নেওয়া হচ্ছে৷ এটা এক ধরনের সাইকোলজিক্যাল সমস্যা৷’’ তা হলে উপায়? অধ্যাপিকা দেবযানী চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, বিভিন্ন ধরনের যৌন-অপরাধের সঙ্গে যুক্তদের অপরাধমূলক কাজকর্ম শুরু হয়েছে পশুদের উপর অত্যাচারের মাধ্যমে৷ কাজেই, যে মানুষ কোনও কুকুরকে ধর্ষণ করছে, কোনও সময় সে যে কোনও মানুষকেই ধর্ষণ করবে না, তার কোনও নিশ্চয়তা আছে?’’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘রাস্তার কোনও কুকুর হোক অথবা অন্য কোনও পশু, তার উপর যাতে কোনও রকমের অত্যাচার না হয়, সেজন্য আরও বেশি সচেতনতা প্রয়োজন৷ ছোটবেলা থেকেই তৈরি করতে হবে এই সচেতনতা৷ তার জন্য যেমন অভিভাবকদের ভূমিকা রয়েছে, তেমনই ভূমিকা রয়েছে সরকারের৷ এই ধরনের সচেতনতার বিষয়ে স্কুলের সিলেবাসে যেমন পৃথক বিভাগ থাকা জরুরি, তেমনই সরকারের তরফে বিভিন্ন ভাবে প্রচারেরও ব্যবস্থা হওয়া উচিত৷’’

_________________________________________________________________

রাস্তার সারমেয় সংক্রান্ত আরও খবর:
(১) মিশন: কেরল বয়কটের ভরসা এখন বেঙ্গালুরু
(২) মানুষের খাদ্য হিসেবে নিখোঁজ হচ্ছে রাস্তার সারমেয়রা!
(৩) রাস্তার সারমেয়দের হত্যায় অনশন-বয়কট মিশন

_________________________________________________________________

সেরা দশ প্রতিবেদন!

 ঋতুপর্ণা অভিনীত সেরা ১০ যৌনদৃশ্য
 বক্স অফিস সেরা ১০টি হিন্দি ছবি
 সেন্সরের কাঁচিতে সেরা ১০ অন্তরঙ্গ দৃশ্য!
 বাংলা ছবির সেরা ১০ উত্তেজক দৃশ্য
 একনজরে বলিউডের সেরা ১০ চুমু
 বৃষ্টির হট সিনে সেরা ১০ নায়িকা
 পকেটে ১০০/- নিয়ে পেটপুজোর সেরা ঠিকানা
 বজরঙ্গি-ই সলমনের সেরা বলছেন: আমির
 ১০ উপায়ে সহজেই এড়ানো যাবে দ্রুত বীর্যপাত
 বিশ্বের সেরা দশ ডাকসাইটে সুন্দরী কোটিপতি