নয়াদিল্লি: বিজেপির অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সমাজবাদী পার্টির নেতাও এক সুরে সুর মেলালেন। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন জানিয়েছিলেন যেহেতু তিনি পেঁয়াজ খান না তাই পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি নিয়ে সেরকম কোন অসুবিধা হচ্ছে না তার। অর্থাৎ পরোক্ষভাবে পেঁয়াজ না খাওয়ার দিকেই ইঙ্গিত করেছিলেন তিনি। আর এবারে সমাজবাদী পার্টির নেতা আজম খানও অর্থমন্ত্রীর সুরে সুর মেলালেন।

পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করলেই এই সমস্যা থেকে রেহাই মিলবে। কি প্রয়োজনীয়তা আছে পেঁয়াজ রসুন খাওয়ার? পেঁয়াজ রসুন মাংস খাওয়া বন্ধ করলেই এই সমস্যা থেকে রেহাই মিলবে বলে সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন তিনি।

তিনি তার মন্তব্যতে জানিয়েছেন, পেঁয়াজ খাওয়া উচিত নয়। এতে দুর্গন্ধ বের হয় মুখ থেকে। একবার এক রানী জানিয়েছিলেন প্রজারা যদি রুটি খেতে না পারে তাহলে তাঁরা যেন কেক খায় এই মন্তব্যটিও তিনি যোগ করেছিলেন।

এই মুহূর্তে পেঁয়াজের দাম ক্রমেই বেড়ে চলছে। যার ফলে ভ্যগতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। অনেক রাজ্যতেই পেঁয়াজের দাম ১০০ পেরিয়েছে। অনেকে আশঙ্কা করছে খুব তাড়াতাড়ি ডবল সেঞ্চুরিও করে ফেলবে পেঁয়াজ। আর এই ধরণের মন্তব্য করাতে সরকারের দুর্বলতাকে সামনে আনছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

এর আগে নির্মলা সীতারমন জানিয়েছিলেন তিনি এমন এক পরিবার থেকে আসেন যেখানে পেঁয়াজ রসুন বেশী ব্যবহার করা হয় না। অর্থমন্ত্রীর করা মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম কটাক্ষ করে জানিয়েছিলেন তাহলে কি উনি অ্যাভোকাডো খান।

পরিস্থিতি এই মুহূর্তে এতটাই সঙ্গীণ বাইরে থেকে পেঁয়াজ আমদানি করার কোথাও ভাবতে হচ্ছে সরকারকে। এছাড়া অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন সরকার এই বিষয় নিয়ে কড়া নজর রাখছে।