নয়াদিল্লি: আগামী ২৫ এবং ২৯ মার্চ ওমান এবং সংযুক্ত আরব আমিরশাহির বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচের জন্য ঘোষিত ভারতীয় দলে ১০ নতুন মুখ। মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক ফ্রেন্ডলির জন্য ৩৫ জনের যে স্কোয়াড ঘোষণা করেছেন কোচ ইগর স্টিম্যাচ তাতে সুযোগ পেয়েছেন বিপিন সিং, ইশান পান্ডিতা, আশুতোষ মেহতার মত চলতি আইএসএলে সাড়াজাগানো একাধিক ফুটবলার। আগামী ১৩ মার্চ আইএসএল ফাইনালের পরে ২৮ সদস্যের চূড়ান্ত স্কোয়াড ঘোষিত হবে।

আইএসএল ফাইনালের পর স্কোয়াডের সকল সদস্যকে নিয়ে প্রস্তুতি শিবিরের জন্য দুবাই রওনা দেবেন ক্রোট কোচ। স্টিম্যাচ এক প্রেস রিলিজে জানিয়েছেন, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে ৩৫ সদস্যের স্কোয়াড ঘোষণা করেছি আইএসএল প্লে-অফে চোট-আঘাতের কথা ভেবে।’ বিপিন, ইশান, আশুতোষ ছাড়াও স্টিম্যাচের দলে ডাক পাওয়া নতুন মুখের মধ্যে রয়েছেন মাশুর শেরিফ, আকাশ মিশ্র, জিকসন সিং, রাহুল কেপি প্রমুখ।

চোটের কারণে ব্র্যান্ডন ফার্নান্দেজ, রাহুল ভেকে, সাহাল আব্দুল সামাদ এবং আশিস রাইকে ঘোষিত স্কোয়াডের বাইরে রাখতে হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্টিম্যাচ। স্কোয়াডে সুযোগ পাওয়া নতুন মুখদের প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে ক্রোট কোচ বলেন, ‘একটা কঠিন সময় পেরিয়ে অবশেষে আমরা একজোট হতে পেরেছি। নয়া তরুণ তুর্কিদের সঙ্গে সাক্ষাত এবং আমাদের দলের ভবিষ্যত কতটা উজ্জ্বল সেটা জানতে পারলে ভাললাগবে।’ একবছরেরও বেশি সময় দল কোনও আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেনি, তাই ওমান এবং সংযুক্তি আরব আমিরশাহি ম্যাচদু’টি ফ্রেন্ডলি হলেও দলের জন্য যে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে, জানিয়েছেন স্টিম্যাচ।

২০১৯ নভেম্বরে আন্তর্জাতিক সার্কিটে শেষ ম্যাচ খেলেছিল মেন ইন ব্লু। তাজিকিস্তান এবং মাসকাটে ২০২২ বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বে আফগানিস্তান এবং ওমানের মুখোমুখি হয়েছিলেন সুনীলরা। এখনও অবধি ২০২২ বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বে পাঁচ ম্যাচ থেকে মাত্র ৩ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে মেন ইন ব্লু। কাতার এবং আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে হোম এবং বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলা এখনও বাকি রয়েছে তাদের। যা অবস্থা তাতে বিশ্বকাপ যোগ্যতা অর্জনের সম্ভাবনা না থাকলেও ২০২৩ এশিয়ান কাপের জন্য বাকি তিনটি ম্যাচ গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে ভারতের জন্য।

ঘোষিত স্কোয়াড একনজরে:
গোলকিপার: গুরপ্রীত সিং সান্ধু, অমরিন্দর সিং, শুভাশিস রায়চৌধুরি, ধীরজ সিং, বিশাল কাইথ।

ডিফেন্ডার: সেরিটন ফার্নান্দেজ, আশুতোষ মেহতা, আকাশ মিশ্র, প্রীতম কোটাল, সন্দেশ ঝিঙ্গান, চিংলেনসানা সিং, সার্থক গোলুই, আদিল খান, মন্দার রাও দেশাই, প্রবীর দাস, মাশুর শেরিফ।

মিডফিল্ডার: উদান্তা সিং, রাওলিন বোর্জেস, আপুইয়া, জিকসন সিং, রেনিয়ার ফার্নান্দেজ, অনিরুদ্ধ থাপা, বিপিন সিং, ইয়াসির মহম্মদ, সুরেশ সিং, লিস্টন কোলাসো, হালিচরন নার্জারি, লালিয়ানজুয়ালা ছাংতে, আশিক কুর্নিয়ান, রাহুল কেপি, হিতেশ শর্মা, ফারুখ চৌধুরি।

ফরোয়ার্ড: মনবীর সিং, সুনীল ছেত্রী, ইশান পান্ডিতা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।