দুবাই: বুধবারই ইংল্যান্ডের মাটিতে শেষ হয়েছে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটের সিরিজ। আর তারপরেই বৃহস্পতিবার আমিরশাহীর মাটি ছুঁয়েছে ইংরেজ এবং অজি ক্রিকেটারদের চার্টার্ড ফ্লাইট। ইংল্যান্ড থেকে আসা দু’দলের ২১ জন ক্রিকেটার মরুশহরে এসে যোগ দিয়েছেন আইপিএলের ৭টি ফ্র্যাঞ্চাইজিতে। কাটাতে হয়েছে ৩৬ ঘন্টার কোয়ারেন্তাইনের মেয়াদ।

রাজস্থান শিবিরে ইংল্যান্ড থেকে এসে যোগদান করেছেন অজি ক্রিকেটার তথা ফ্র্যাঞ্চাইজি অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ, ইংরেজ পেসার জোফ্রা আর্চার এবং উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জোস বাটলার। কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ শেশঘ হতেই তিন ক্রিকেটারের শরীরে শুক্রবারই কোভিড পরীক্ষা করা হয়। বাধ্যতামূলক সেই পরীক্ষায় শনিবার তিন ক্রিকেটারের রিপোর্টই নেগেটিভ এসেছে বলে জানানো হয়েছে ফ্র্যাঞ্চাইজির তরফ থেকে।

আইপিএলের এক বিশেষ সূত্র পরিচয় অজ্ঞাত রেখে পিটিআই’কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এদিন জানিয়েছে, ‘শুক্রবার স্মিথ, বাটলার এবং আর্চারের কোভিড পরীক্ষা করা হয়েছে, প্রত্যেকেরই রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। সুতরাং, এই তিন ক্রিকেটার এখন সিলেকশন প্রক্রিয়ায় অংশীদার হতে পারে।’ তবে কোভিড পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও স্মিথকে নিয়ে রাজস্থান ফ্র্যাঞ্চাইজির অন্য চিন্তা। ইংল্যান্ডের মাটিতে তাদের বিরুদ্ধে ওয়ান-ডে সিরিজে অংশ নেওয়ার আগে মাথায় আঘাত পেয়েছিলেন স্টিভ স্মিথ। প্রথম ওয়ান-ডে ম্যাচের আগে নেট সেশনে মাথায় আঘাত পাওয়া স্মিথকে নিয়ে কোনও ঝুঁকি নিতে রাজি নয় রয়্যালসরা। অধিনায়ক স্মিথের ‘কঙ্কাশন প্রোটোকল’ নিয়ে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখে চলেছে রাজস্থান রয়্যালস মেডিক্যাল টিম।

২২ সেপ্টেম্বর শারজা ক্রিকেট গ্রাউন্ডে চেন্নাই সুপার কিংসের বিরুদ্ধে ত্রয়োদশ আইপিএলে অভিযান শুরু করেছে রয়্যালসরা। সেই ম্যাচে স্টিভ স্মিথ খেলতে না পারলে সেটা রাজস্থান ফ্র্যাঞ্চাইজির কাছে অন্যতম বড় ধাক্কা। তবে রয়্যালস ফ্র্যাঞ্চাইজি পুরোপুরি হাল ছাড়তে রাজি নয়। ফ্র্যাঞ্চাইজির মেডিক্যাল টিম তাঁকে ‘ফিট’ সার্টিফিকেট দিলে তবেই মাঠে নামবেন স্মিথ। নইলে তাঁকে নিয়ে কোনওরকম ঝুঁকি নেবে না বলেই জানিয়েছে রয়্যালস শিবির।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দুবাইয়ে হোটেলে পৌঁছনোর সময় স্মিথের যখন শরীরের তাপমাত্রা নেওয়া হয়, সেই সময়ের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে রয়্যালস শিবির, পাশাপাশি মজার ছলে থার্মাল স্ক্যানারের একটি ছবি তারা পোস্ট করে যার স্ক্রিনে লেখা, ‘GOAT’। অর্থাৎ, স্মিথকে ‘গ্রেটেস্ট অফ অল টাইম’ আখ্যা দেয় তাঁর ফ্র্যাঞ্চাইজি। ডন ব্র্যাডম্যানের পর টেস্ট ক্রিকেটে সর্বোচ্চ গড় এখন স্মিথের ব্যাটেই। সুতরাং, সন্দেহ নেই বিশ্ব ক্রিকেটে স্মিথ আক্ষরিক অর্থেই এখন ‘GOAT’।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।