ব্রিসবেন: খাতায়-কলমে অ্যারন ফিঞ্চ যতই নেতা হোন না কেন, অলিখিতভাবে বিশ্বকাপে অজিদের নেতৃত্বের ব্যাটন সামলাবেন স্টিভ স্মিথ এবং ডেভিড ওয়ার্নারই। সাফ জানিয়ে দিলেন অস্ট্রেলিয়ার হেড কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার।

স্যান্ডপেপার গেট কান্ডে একবছরের নির্বাসন পর্ব পেরিয়ে বিশ্বকাপেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কামব্যাক করবেন এই দুই অজি তারকা। তার আগে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগে নিজ-নিজ ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে নামের প্রতি সুবিচার করেছেন স্মিথ-ওয়ার্নার। ১২ ম্যাচে ৬৯.২০ ব্যাটিং গড়ে ২০১৯ আইপিএলে ওয়ার্নারের ব্যাট থেকে এসেছে ৬৯২ রান। শতরান ১টি ও অর্ধশতরান ৮টি।

অন্যদিকে ব্যাট হাতে ওয়ার্নারের মত বিধ্বংসী না হলেও শেষ ৫ ম্যাচে রাহানের থেকে হাত বদল করে নেতৃত্বের ব্যাটনটা গ্রহণ করেন স্মিথ। এরপর স্মিথের ক্যাপ্টেনসিতে ৫ ম্যাচের ৩টিতে জিতে প্লে-অফের লড়াইয়ে দারুণভাবে ফিরে আসে খারাপ শুরু করা রাজস্থান ফ্র্যাঞ্চাইজি।

আইপিএলে ওয়ার্নারের পারফরম্যান্সে মুগ্ধ ফিঞ্চ আগেই জানিয়েছিলেন ‘ক্ষুধার্ত’ ওয়ার্নারকেই বিশ্বকাপে পেতে প্রত্যয়ী তিনি। আর শুক্রবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার তরফ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে অজি কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার জানান, ‘বিশ্বকাপ ট্রফি নিজেদের দখলে রাখতে দলের প্রত্যেক ক্রিকেটারকেই বিশ্বকাপে নেতা হয়ে উঠতে হবে।’ কিন্তু প্রাক্তন অধিনায়ক ও সহ-অধিনায়কের প্রসঙ্গ আসতেই ল্যাঙ্গারের মত, ‘দলের প্রকৃত নেতা ওরা দু’জনই। মাঠ এবং মাঠের বাইরে দুই ক্রিকেটারের অভিজ্ঞতা বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার সম্পদ।’

অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ৫১টি ওয়ান ডে ম্যাচে নেতৃত্ব দেওয়া স্মিথ নেতৃত্ব থেকে নির্বাসনে রয়েছেন দু’বছর। পুনরায় অজিদের নেতা হিসেবে বাইশ গজে তাঁকে দেখা যাবে কীনা, সেটা সময়ই বলবে। কিন্তু প্রাক্তন সহ-অধিনায়ক ওয়ার্নার আর কখনোই দলের নেতৃত্বের ভার গ্রহণ করতে পারবেন না।

এদিকে শুক্রবার ব্রিসবেনে শুরু হয়ে গেল বিশ্বকাপের জন্য অস্ট্রেলিয়ার প্রস্তুতি শিবির। সেখানে নির্বাসন পরবর্তী সময়ে প্রথমবারের জন্য দলের অনুশীলনে যোগ দিলেন ওয়ার্নার। তবে শারীরীক অসুস্থতার কারণে প্রথমদিনের শিবিরে অনুপস্থিত ছিলেন স্মিথ। বিশ্বকাপে অভিযান শুরুর আগে আয়োজক ইংল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে অংশ নেবে অজিরা। এরপর ১ জুন বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে অ্যারন ফিঞ্চ অ্যান্ড কোং।