হাওড়া: বেশ কিছুদিন ধরেই শিরোনামে পেঁয়াজের দাম। বাইরে থেকে পেঁয়াজ এনে ঘাটতি পূরণের চেষ্টা চলছে। সাধারণের কথা মাথায় রেখে ইতিমধ্যেই সস্তায় পেঁয়াজ দিতে শুরু করেছে রাজ্য সরকার। ১৫০ ছুঁয়েছিল পেঁয়াজের দাম। মমতা সরকারের উদ্যোগে সেই পেঁয়াজ ৫৯ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

এবার রাজ্যের মন্ত্রী জানালেন, খুব দ্রুত রাজ্য সরকার আর পেঁয়াজ বাইরে থেকে কিনবে না। বৃহস্পতিবার হাওড়ার বাগনান-১ ব্লকের কৃষি, প্রাণিসম্পদ মেলার মঞ্চ থেকে একথা জানিয়েছেন রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী অরূপ রায়। এদিন তিনি ওই মেলার উদ্বোধনে গিয়েছিলেন। সেখানে মন্ত্রী বলেন, আপাতত চাহিদার ৬০ শতাংশ পেঁয়াজ আমরা উৎপাদন করি। খুব দ্রুত ১০০ শতাংশই রাজ্যে উৎপাদন হবে।

এদিন তিনি আরও জানিয়েছেন, রাজ্যের কাছে সমবায় দফতর পেঁয়াজ বন্টন করতে চেয়ে আবেদন করেছে। তা পেয়ে গেলেই সমবায় দফতর পেঁয়াজ বিক্রি করবে। মেলা করা নিয়ে নানান সময়ে সমালোচনার উত্তর দিয়ে মন্ত্রী বলেন, মেলার মধ্যে কৃষকরা আরও উন্নত চাষ পদ্ধতির সঙ্গে পরিচিত হতে পারেন। যা নিয়ে সমালোচনা হয়, তা সমালোচকরা কখনও করেনি।

সরকারি তথ্য অনুয়ায়ী দেশের ১১৪টি শহরে এক কেজি পেঁয়াজের গড় মূল্য ১০০ টাকারও বেশি। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরের পর থেকে পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিক হারে বাড়তে শুরু করে৷ পেঁয়াজের লাগামছাড়া দাম বৃদ্ধিতে বাড়ছে উদ্বেগ৷ ঠিক কবে পেঁয়াজের দাম ফের লাগামে আসবে তা নিয়ে সন্দিহান অনেকেই৷ মহার্ঘ্য পেঁয়াজ দোকানে রাখতেও উদ্বেগে থাকছেন দোকানমালিকরা৷ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে পেঁয়াজ চুরির ঘটনা ঘটছে৷ শুনতে অবাক লাগলেও বহু জায়গায় চোর দোকানে ঢুকে টাকা ও অন্য সামগ্রী না নিয়ে পেঁয়াজের বস্তা লুঠ করেই চম্পট দিচ্ছে৷

দিল্লিতে পেঁয়াজের গড় মূল্য প্রতি কেজিতে প্রায় ৯৬ টাকা৷ মুম্বইয়ে ১০২ টাকা কিলো দরে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ৷ চেন্নাইয়ের বাজারে পেঁয়াজের বিক্রি কেজি প্রতি ১০০ টাকা দরে৷

কলকাতার বাজারে ১৪০ টাকা কিলো দরে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ৷ দক্ষিণের তিরুঅনন্তপুরম, কোজিকোড়, মায়াবন্দরেও দাম চড়া পেঁয়াজের৷ ওই জায়গাগুলিতে ১৬০ টাকা কিলো দরে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ৷ দক্ষিণ ভারতের তিরুপতি, এরনাকুলাম, পলককাদে ১৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ৷