স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ক্রেতা সুরক্ষা সংক্রান্ত পরিষেবা এবার মহকুমা স্তরে ছড়িয়ে দিতে আগ্রহ প্রকাশ করলেন ক্রেতা সুরক্ষা দফতরের মন্ত্রী সাধন পাণ্ডে৷ আগামী আর্থিক বছরের মধ্যে ৮৫টি মহকুমা শহরের মধ্যে ৪০টিতে দফতরের অফিস তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে বলে জানালেন মন্ত্রী৷

এখন কালিম্পং ছাড়া রাজ্যের সব জেলাতেই ক্রেতা সুরক্ষা দফতরের অফিসের ‘ফোরাম’ আছে৷ কোনও উপভোক্তা পণ্য বা পরিষেবা কেনার পর প্রতারিত হয়েছেন মনে করলে ফোরামে মামলা দায়ের করতে পারেন৷ এর পাশাপাশি আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বিরোধী মেটানোর ব্যবস্থাও রয়েছে ক্রেতা সুরক্ষা দফতরের অফিসে৷

জেলা থেকে এই পরিষেবা প্রদান মহকুমা স্তরে নিয়ে যেতে চাইছে দফতর৷ মহকুমা স্তরে জেলা ফোরামের আলাদা বেঞ্চ তৈরি করা সম্ভব বলে মনে করছে দফতর৷ উত্তর ২৪ পরগনা জেলার কিছু এলাকার জন্য রাজারহাটে একটি জেলা ফোরাম খোলার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে বলেও সাধনবাবু জানিয়েছেন৷

রাজারহাটে দফতরের একটি নতুন বাড়ি তৈরি হয়েছে৷ এখন সল্টলেক, লেকটাউন, বাগুইহাটি, দমদম, নিউটাউনের বাসিন্দাদের ক্রেতা সুরক্ষা ফোরামে মামলা করার জন্য বারাসতে যেতে হয়৷ রাজারহাটে অফিস চালু হলে তাঁদের সুবিধা হবে বলেও জানান তিনি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।