রাজ্য সরকারি কর্মী
রাজ্য সরকারি কর্মী (ফাইল ছবি)

ট্রেড ইউনিয়ন এবং কৃষক সংগঠনগুলি ২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার দেশজুড়ে সাধারণ ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে৷ কিন্তু এই ধর্মঘটে পশ্চিমবঙ্গের জনজীবন সচল রাখতে সব রকম পদক্ষেপ করছে রাজ্য সরকার৷ এদিকে সিটু আইএনটিইউসি সহ কেন্দ্রীয় সংগঠন গুলির নেতৃত্ব হুমকির সুরে জানিয়েছে, ধর্মঘট ভাঙার চেষ্টা করলে তা প্রতিরোধ করা হবে৷ ‌যদিও ইতিমধ্যে বনধে সরকারি কর্মীদের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক বলে নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে  নবান্নের তরফে।

নবান্ন থেকে এক নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার বামেদের বনধের দিন সরকারি ও আধা সরকারি দফতরে হাজিরা বাধ্যতামূলক বলে ঘোষণা করা হয়েছে। বনধের দিন সচল থাকবে সমস্ত সরকারি গণপরিবহন।

বিস্তারিত আসছে…

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।