নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: একের পর এক বিতর্ক৷ সবই মিডডে মিল ঘিরে৷ কোথাও মিডডে মিলে জুটছে শুধু নুন ভাত৷ কোথাও আবার আর্সেনিকের জলেই চলছে মিডডে মিলের রান্না৷ সব মিলিয়ে শিকেয় উঠেছিল পড়ুয়াদের স্বাস্থ্যের প্রশ্ন৷

এবার কড়া হাতে তা নিয়ন্ত্রণ করতে পথে নামল রাজ্য় সরকার৷ নির্দিষ্ট করে দেওয়া হল মিডডে মিলের মেনু৷ জানানো হয়েছে ভাতের সঙ্গে পড়ুয়াদের পাতে থাকতে হবে পুষ্টিকর খাবার৷ তালিকায় রাখা হয়েছে ডিম, সয়াবিনের তরকারি, আলুপোস্তের মত পদকে৷ সাত দিনের মধ্যে এই নির্দেশ কার্যকর করতে হবে বলে জানানো হয়েছে৷

আরও পড়ুন : ‘দিদিমনি মুখ্যমন্ত্রী থেকে চা-ওয়ালি হবেন’, কটাক্ষ সায়ন্তনের

সম্প্রতি রাজ্যে মিড ডে মিলের দুর্নীতির অভিযোগ ব্যাপক হারে বেড়েছে৷ এতে চিন্তিত মুখ্যমন্ত্রী৷ তাঁর নির্দেশে দুর্নীতি রুখতে কমিউনিটি কিচেন তৈরি করা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছিল৷ রাজ্যের মধ্যে প্রথম এই প্রজেক্ট সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহেই চালু হতে চলেছে, এমনই খবর ছিল প্রশাসন সূত্রে৷

তবে শিক্ষক শিক্ষিকাদের প্রশ্ন বর্তমানে প্রাথমিক স্কুলে মিড ডে মিলের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বরাদ্দ (চাল বাদে) মাথাপিছু ৪টাকা ৪৮ পয়সা এবং উচ্চ প্রাথমিকের জন্য ৬ টাকা ৭১ পয়সা। এই অল্প অর্থে কীভাবে ছাত্রছাত্রীদের পাতে রাজ্য সরকারের নির্ধারিত মেনু মেনে খাবার দেওয়া সম্ভব৷