স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: রাজ্যে কৃষির উন্নয়ন ঘটাতে কৃষকদের পাশে দাঁড়ালো রাজ্য সরকার। নতুন বছরের উপহার হিসাবে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে কৃষকদের জন্য এল একটি নতুন সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্প। যার নাম দেওয়া হয়েছে ” কৃষক বন্ধু”।

এই কৃষক বন্ধু প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্যের সমস্ত কৃষকরা বছরে রবি ও খরিপ চাষের জন্য দু দফায় একর প্রতি ২৫০০+২৫০০= ৫০০০ টাকা পেতে পারেন৷ বলা হয়েছে, এক একরের কম জমির জন্য আনুপাতিক হারে অনুদান দেওয়া হবে। কৃষকদের জমি থাকলেই ন্যুনতম ১০০ টাকা করে দুটি চাষে মোট ২০০০ টাকা পাবে।

অনুদানের পাশাপাশি কৃষক বীমারও ব্যবস্থা থাকছে। ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়সের মধ্যে যদি কোন কৃষকের মৃত্যু হয় তাহলে তার পরিবার পাবে ২ লক্ষ টাকা। জেলার পাশাপাশি ব্লকের কৃষি আধিকারিকরা প্রকল্পটির দেখাশোনার দায়িত্বে থাকলেও প্রকল্পের সমস্ত কাজ করবেন ওয়েবেল নামক একটি সংস্থা।

রাজ্যের বিভিন্ন জেলার পাশাপাশি পূর্ব মেদিনীপুর জেলার ব্লকে গ্রামপঞ্চায়েত অফিসে আজ থেকেই নির্দিষ্ট এলাকার কৃষকদের কাছ থেকে আবেদন গ্রহনের কাজ শুরু হয়েছে। ব্লকের নিজ নিজ গ্রামপঞ্চায়েতের ঘোষিত এলাকায় সকাল সাড়ে ১০ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত আবেদন গ্রহন করা হবে। আবেদন করার জন্য লাগছে সচিত্র ভোটার কার্ড, কৃষি জমির সাম্প্রতিক পরচা ও ব্যাঙ্কের পাশবইয়ের প্রথম পাতার প্রতিলিপি ও আসল।

পূর্ব মেদিনীপুর জেলা সহ কৃষি অধিকর্তা শস্য সুরক্ষা মৃণালকান্তি বেরা জানান, রাজ্য সরকারের নির্দেশ অনুসারে “কৃষক বন্ধু” প্রকল্পের আবেদনপত্র গ্রহনের কাজ শুরু হয়েছে আজ থেকে। পর্যায়ক্রমে ব্লকের মৌজা অনুসারে কৃষকদের কাছ থেকে আবেদনপত্র গ্রহন করা হবে।

জানানো হয়েছে, ২৮ শে জানুয়ারী যে সমস্ত মৌজার কৃষকদের আবেদন জমা হবে তাদের আগামী ১লা ফেব্রুয়ারিতে তাদের হাতে চেক তুলে দেওয়া হবে। যে সমস্ত মৌজার কৃষকরা প্রথম পর্যায় আবেদনপত্র জমা করতে পারেননি তারা কবে কোথায় জমা করবেন তা কৃষকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে, বা মাইক প্রচারের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।