কলকাতা: বাংলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।শুক্রবারের হিসেব অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১২০০। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ১,১৯৮ জন৷ গতকাল সংখ্যাটা ছিল ১,০৮৮ ৷ বৃহস্পতিবার থেকে শুক্রবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২৬ জনের৷ তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৮,৮৮১ জন৷ শুক্রবার

রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ১,১৯৮ জন।ফলে এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২৭,১০৯ জনে ৷ অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ২৬ জনের৷ ফলে এই পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৮৮০ জনে। আক্রান্ত ও মৃতের পাশাপাশি অনেকেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। একদিনে ৫২২ জন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন।

ফলে এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৭,৩৪৮ জন। যা শতাংশের হিসেবে ৬৩.৯৯ শতাংশ৷ যে ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে, এদের মধ্যে কলকাতারই ১৩ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনার ৬ জন৷ হাওড়া ৪ জন৷ হুগলি ১ জন৷ পূর্ব মেদিনীপুর ১ জন৷ মালদা ১ জন৷ বাংলায় নতুন করে টেস্ট হয়েছে ১০,৬৩৯টি৷

তবে এই পর্যন্ত মোট টেস্ট হয়েছে ৫ লক্ষ ৯৩ হাজার ৯৬৭ জনের৷ প্রতি মিলিয়নে টেস্ট ৬,৬০০ জন৷ যা শতাংশের হিসেবে ৪.৫৬ শতাংশ৷ এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ৫২টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ২টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷

বাংলায় ৮০ টি সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতালে আইসোলেশন শয্যা তৈরি করা হয়েছে৷ এর মধ্যে সরকারি ২৬ টি হাসপাতাল ও ৫৪ টি বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে৷ হাসপাতালগুলিতে আইসিইউ শয্যা রয়েছে ৯৪৮টি, ভেন্টিলেশন সুবিধা রয়েছে ৩৯৫টি৷ কিন্তু সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার রয়েছে ৫৮২টি৷

এই পর্যন্ত শুধু কলকাতায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৪৭০ জন৷ মোট আক্রান্ত ৮,৭৪২ জন৷ এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় শহরে আক্রান্ত ৩৭৪ জন৷ নতুন করে ছাড়া পেয়েছেন ২০৪ জন৷ ফলে কলকাতায় মোট ছাড়া পেলেন ৫২০৫ জন৷ অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৩০৬৭ জন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.