কলকাতা : রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিয়ে সংক্রমণের বাড়িয়ে চলেছে । সাম্প্রতিক অতীতের সমস্ত রেকর্ড ভেঙে বুধবার একদিনে রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজার অতিক্রম করল। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে রেকর্ড পরিমাণ মানুষের মৃত্যু হল করোনা সংক্রমণে। এই আবহেই বৃহস্পতিবার রাজ্যে ষষ্ঠ দফার নির্বাচন।

রাজ্যের স্বাস্থ্যদপ্তর সূত্রে বুধবার সন্ধের রিপোর্ট থেকে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় পশ্চিমবঙ্গে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১০ হাজার ৭৮৪ জন। এর ফলে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৬ লক্ষ ৮৮ হাজার ৯৫৬ জনে পৌঁছলো । সমানে হুহু করে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। বুধবারের রিপোর্ট বলছে, বাংলায় এই মুহূর্তে চিকিৎসাধীন করোনা রোগীর সংখ্যা ৬৩ হাজার ৪৯৬ জন। এই সংখ্যাটি মঙ্গলবারের তুলনায় ৫ হাজার ১১০ জন বেশি। মারা গেছেন ২৪ ঘণ্টায় ৫৮ জন।

বুধবারের স্বাস্থ্য দফতরের হিসেব বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বাধিক সংক্রমিত হয়েছে কলকাতায়। সংক্রমণের সংখ্যা ২ হাজার ৫৬৮। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা, আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ১৪৯। রাজ্যের বাদবাকি চিন্তা জেলাগুলির করোনা পরিস্থিতিও যথেষ্ট উদ্বেগ জনক। এদিকে দৈনিক সুস্থতার হারও কমছে । গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫ হাজার ৬১৬ জন। ফলে সুস্থতার হার কমে ৮৯.২৩% দাঁড়িয়েছে। বুধবার সুস্থতার শতকরা হার ৮৯.৮২ % বলে জানা গেছে। এখনও পর্যন্ত রাজ্যে করোনাকে হারিয়ে সুস্থ হয়েছেন ৬ লক্ষ ১৪ হাজার ৭৫০ জন।

এর পাশাপাশি চিন্তা বাড়াচ্ছে রাজ্যে করোনা সংক্রমণে মৃত্যুর সংখ্যাও। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৫৮ জনের। সর্বাধিক মৃত্যু হয়েছে উত্তর ২৪ পরগনায়, সংখ্যাটি ১৪। এর ঠিক পরেই ১৩ জন মারা গেছেন কলকাতায়। বাকি মৃতের খবর পাওয়া গেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হুগলি, হাওড়া, পশ্চিম বর্ধমান ও দুই মেদিনীপুর থেকে। বুধবারের হিসেবে অনুযায়ী রাজ্যের করোনা সংক্রমণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১০ হাজার ৭১০। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৫০ হাজারের বেশি। এই পরিস্থিতি চলতে থাকলে রাজ্যের করোনা সংক্রমণের চিত্রটি ক্রমেই ভয়াবহ হয়ে উঠবে। এই পরিস্থিতিতে ভেঙে পড়তে পারে রাজ্যের চিকিৎসা পরিকাঠামো।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.