স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: শহরে ই-রিকশা চালু করতে পুরনো টোটো ভেঙে দেওয়ার কাজ শুরু করেছে জেলা প্রশাসন। সোমবার মালদহ জেলার প্রশাসনিক ভবনের সামনে ওই টোটো গুলি ভাঙার কাজ শুরু হয়েছে। যদিও, ক্ষতিপূরণ বাবদ টোটো চালকেরা ২০ হাজার টাকা করে পাবেন বলে জানা গিয়েছে।

টোটো ভাঙা নিয়ে জেলা বিজেপির সহ-সভাপতি অজয় গঙ্গোপাধ্যায় বলেন,শাসক দলের প্রত্যক্ষ মদতে ও মোটা টাকার বিনিময়ে তাদের নেতাদের প্রতিশ্রুতিতে বেকার যুবকরা ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে তাদের সংসার চালাচ্ছিল। এখন আবার শাসক দলের অঙ্গুলিহেলনে শুরু হয়েছে টোটো ভাঙার কাজ। শুধু তাই নয়, কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক আলী সাধন রায় প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তকে তালিবানি আইনের সঙ্গে তুলনা করেছেন।

সিপিএমের মালদহ জেলা সম্পাদক অম্বর মিত্র বলেন, ”এইভাবে টোটো ভেঙে হাতে কুড়ি হাজার টাকা ধরিয়ে দিয়ে সমস্যার কোনও সমাধান হবে না। উল্টে সমস্যা বাড়বে। প্রশাসনের উচিত ছিল বিকল্প ব্যবস্থা করে তারপর এই টোটোগুলিকে ভাঙা।”

যদিও তাদের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে, জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক তথা ইংরেজবাজার পুরসভার কাউন্সিলর শুভময় বসু। তিনি বলেন, ”সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে প্রশাসন এই কাজ করছে। বিরোধী দলগুলি যে অভিযোগ করছে তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। সর্বদলীয় বৈঠকে করে তারাই এই সিদ্ধান্তে সম্মতি দিয়েছিলেন। এখন বাইরে এসে নাটক করছে।” যদিও গোটা বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসনের থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।